কুমিল্লা মুক্ত দিবসে ফটো সাংবাদিক ফোরামের মুক্তিযোদ্ধা সম্মাননা

72
হালিম সৈকত: কুমিল্লা মুক্ত দিবসে ফটো সাংবাদিক ফোরামের আলোচনাসভা ও মুক্তিযোদ্ধা সম্মাননা অনুষ্ঠিত হয়েছে । ৮ ডিসেম্বর রবিবার বিকাল ৪টায় কুমিল্লা প্রেসক্লাব মিলনায়তনে এই সম্মননা অনুষ্ঠানটি অনুষ্ঠিত হয়। দিনটিকে স্মরণ করে জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান কুমিল্লার ৪ বীর মুক্তিযোদ্ধাকে সম্মাননা প্রদান করেন কুমিল্লা ফটো সাংবাদিক ফোরাম। সম্মাননা প্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধারা হলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আবদুস সালাম, বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ মোসলেম উদ্দিন, বীর মুক্তিযোদ্ধা কাজী আবদুল মতিন ও বীর মুক্তিযোদ্ধা নিরঞ্জন শীল। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কুমিল্লা আদর্শ সদর উপজেলার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এডভোকেট মোঃ আমিনুল ইসলাম টুটুল। সভাপতিত্ব করেন ফোরামের সভাপতি ওমর ফারুকী তাপস। তিনি অনুষ্ঠান উপস্থাপনাও করেন। এ সময় কুমিল্লা মুক্ত দিবসের প্রেক্ষাপট তুলে ধরেন সাংবাদিক হালিম সৈকত। স্বাগত বক্তব্য রাখেন ফোরামের সাধারণ সম্পাদক মোঃ আশিকুর রহমান আশিক। অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র কোরআন তেলওয়াত করেন মোঃ মনির হোসেন। এরপরই শুরু হয় জাতীয় সংগীত। এরপর অতিথিদের ফুল দিয়ে বরণ নেন সংগঠনের সদস্যরা। এ সময় উপস্থিত ছিলেন কুমিল্লা টেলিভিশন জার্নালিস্ট এসোসিয়েশানের সভাপতি হুমায়ূন কবির রনি, সাধারণ সম্পাদক সাইফ উদ্দিন রনি, ফটো সাংবাদিক ফোরামের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম সুমন, সাংগঠনিক সম্পাদক সালাউদ্দিন সুমন, নুরুল ইসলাম, মাইটিভির জসিম উদ্দিন, শাহ ইমরান, সুমন কবির, তুহিন আহমেদ, রফিকুল ইসলাম, জহিরুল হক বাবু, জুয়েল খন্দকার, রানা, অমিত মজুমদার ও জহিরুল ইসলাম প্রমুখ। সবশেষে ধন্যবাদ দিয়ে প্রোগ্রাম সমাপ্ত করেন কুমিল্লা রিপোর্টাস ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক মোঃ দেলোয়ার হোসেন জাকির। উল্লেখ্য ৮ ডিসেম্বর কুমিল্লা পাক হানাদার বাহিনী দখলদারিত্বের অবসান করেন কুমিল্লার মুক্তিকামী মানুষ। ১৯৭১ সালের ৭ ডিসেম্বর রাতে পুরাতন বিমান বন্দরে রাতে ৩টার দিকে মুক্তিযোদ্ধা ও মিত্রবাহিনী পাকবাহিনীর ২২ বেলুচ রেজিমেন্টের ঘাঁটিতে আক্রমণ করে। মুক্তিসেনারা মর্টার আর্টিলারি আক্রমণ চালিয়ে শেষ রাতের দিকে তাদের আত্মসমর্পণ করাতে বাধ্য করে। এ সময় ২৬ জন মুক্তিযোদ্ধা শহিদ হন। তৎকালীন পশ্চিম পূর্বাঞ্চলের প্রশাসনিক কাউন্সিলর চেয়ারম্যান জহুর আহমেদ চৌধুরী দলীয় পতাকা এবং কুমিল্লার প্রথম প্রশাসক এডভোকেট আহমেদ আলী জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন।