৯ ডিসেম্বর কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগ সম্মেলন

83
আকিবুল ইসলাম হারেছ: কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন ঘিরে তৃণমূলের নেতাকর্মীদের মাঝে ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা বিরাজ করছে। এবারের সম্মেলনে তৃণমূল তাদের পছন্দের নেতা নির্বাচিত করতে নানা প্রস্তুতি নিয়েছে।আগামী ৯ ডিসেম্বর জেলার রাজনৈতিক সদর চান্দিনায় এ সম্মেলন অনুষ্ঠানের কথা রয়েছে। সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদের জন্য ৭ প্রার্থী বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের সাথে জোর লবিং তদবির চালিয়ে যাচ্ছে। জেলা নেতৃবৃন্দ সহ উপজেলা আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দের সাথেও বেশ সু-সম্পর্ক গড়ার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে প্রার্থীরা।সভাপতি পদে তিন প্রার্থী হলো- কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের বর্তমান সভাপতি আব্দুল আউয়াল সরকার, সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম সরকার এবং সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহবায়ক মু. রুহুল আমিন। সাধারণ সম্পাদক পদে চার প্রার্থী হলো- কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগ সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির সদস্য সচিব অধ্যক্ষ এম হুমায়ূন মাহমুদ, কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামীলীগ সহ-সভাপতি রোশন আলী মাস্টার, কুমিল্লা-২ (হোমনা-তিতাস) আসনের সংসদ সদস্য সেলিমা আহমাদ মেরী সিআইপি এবং হোমনা উপজেলা আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক ও কুমিল্লা উত্তর জেলা ছাত্রলীগ সাবেক সাধারণ সম্পাদক ছিদ্দিকুর রহমান আবুল। আগামী ৯ ডিসেম্বর কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন সম্পন্ন করতে একটি সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি গঠন করা হয়। কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ম. রুহুল আমিনকে আহ্বায়ক ও অধ্যক্ষ হুমায়ুন মাহমুদকে সদস্য সচিব এবং ২৬ জনকে সদস্য করে ২৮ সদস্যের সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি গঠন করা হয়। এদিকে কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের তিনবারের নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক কর্মীবান্ধব নেতা জাহাঙ্গীর আলম সরকারকে সভাপতি হিসেবে নির্বাচিত করতে চায় দলের অধিকাংশ নেতাকর্মী। দলের এবং নেতাকর্মীদের প্রিয়মুখ হিসেবে পরিচিত জাহাঙ্গীর আলম সরকার কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠার পর থেকে সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করে আসছেন। এবারের সম্মেলনে তৃণমূলের রায়ে তিনি সভাপতি নির্বাচিত হতে পারেন বলে শোনা যাচ্ছে। তাকে ঘিরেই এখন একাট্টা হচ্ছেন জেলার সাত উপজেলার নেতাকর্মীরা। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও চলছে ব্যাপক প্রচার প্রচারণা। জানা যায়, ১৯৯২ সালে বৃহত্তর কুমিল্লা জেলাকে সাংগঠনিকভাবে দুই ভাগে ভাগ করে কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠা করা হয়। সে সময় সম্মেলনে কর্মীবান্ধব নেতা জাহাঙ্গীর আলম সরকার দলের সাধারণ সম্পাদক পদ লাভ করেন। দীর্ঘ ২৭ বছরে কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের তিন দফা সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। ওইসব সম্মেলনে জাহাঙ্গীর আলম সরকারকেই সাধারণ সম্পাদক হিসেবে বারবার নির্বাচিত করা হয়। আগামী ২০-২১ ডিসেম্বর আওয়ামী লীগের ২১তম জাতীয় সম্মেলন সামনে রেখে সারা দেশের মতো কুমিল্লা উত্তর জেলা এবং এ জেলার অধীনে সব উপজেলা থানা পৌরসভা ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড কমিটির কাউন্সিল সম্পন্ন করার জন্য কেন্দ্র থেকে নির্দেশনা দেয়া হয়। এদিকে কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামীলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনকে ঘিরে কুমিল্লা উত্তর জেলার রাজনৈতিক সদর চান্দিনায় ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে চান্দিনা উপজেলা আওয়ামীলীগ সহ কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামীলীগ। ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের চান্দিনা উপজেলা গেইট থেকে সম্মেলনস্থল চান্দিনা মহিলা বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ পর্যন্ত ব্যানার ফেস্টুন ও তোরণ নির্মাণে ব্যস্ত সময় পার কারছে নেতা-কর্মীরা।দলের দুঃসময়ের কাণ্ডারি জাহাঙ্গীর আলম সরকারকে নতুন কমিটির সভাপতি হিসেবে দেখতে চান তৃণমূলের অধিকাংশ নেতাকর্মী। আসছে সম্মেলনে কর্মীবান্ধব এ নেতাকে সভাপতি করার লক্ষ্যে নেতাকর্মীদের বেশ তৎপরতা লক্ষ করা যাচ্ছে। তাকে ঘিরে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকও সরব রয়েছে। সম্মেলনে এ জেলার বেশির ভাগ নেতাকর্মীই জাহাঙ্গীর সরকারকে সভাপতি হিসেবে পদায়নের জন্য মতামত ব্যক্ত করতে পারেন বলে শোনা যাচ্ছে। কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতিকবিষয়ক সম্পাদক মাসুকুল ইসলাম মাসুক বলেন, জেলার সাত উপজেলার নেতাকর্মীদের একই আওয়াজ- সভাপতি হিসেবে জাহাঙ্গীর সরকারের বিকল্প কাউকে চাই না, আসছে কমিটিতে দলের দুর্দিনের কাণ্ডারি এ নেতাকে সভাপতি হিসেবে দেখতে চায় তৃণমূল। হোমনা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ছিদ্দিকুর রহমান আবুল বলেন, দলের দুঃসময়ে যখন কাউকে খুঁজে পাওয়া যায়নি, তখন আমরা নির্যাতিত নেতাকর্মীরা জাহাঙ্গীর আলম সরকারের কাছে আশ্রয় পেয়েছিলাম। তিনি আমাদের অভিভাবক হিসেবে আশ্রয় দিয়ে আঁকড়ে ধরে দলকে সুসংগঠিত করে রেখেছিলেন। এবারের সম্মেলনে তাকে উত্তর জেলার সভাপতি করা হলে এ জেলায় আওয়ামী লীগের দুর্গ আরও শক্তিশালী হবে।