পূজা মন্ডবে ৬টি প্রতিমা ভাঙচুর: গাড়ী বহরে হামলা আহত-১০

112

নিজস্ব প্রতিনিধি: নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁয়ের জামপুর ইউনিয়নেনপাকুন্ডা গাবতলী পুজামন্ডবে ভাঙচুর করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত বুধবার বিকেলে লক্ষ্মীপূজা মন্ডব পরিদর্শনে যাওয়ার সময় নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সম্পাদক, বঙ্গবন্ধু মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাধীনতা চিকিৎসা পরিষদ (স্বাচিপ) এর সাংগঠনিক সম্পাদক ও সোনারগাঁ থানা আওয়ামলীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য ডাঃ আবু জাফর চৌধুরী বিরুর গাড়ী বহরে অপর গ্রুপের লোকজন হামলা, ভাঙচুর ও লুটপাট চালিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। হামলায় উভয় গ্রুপের কমপক্ষে ১০ জন আহত হয়। আহতদের মধ্যে ২ জনের অবস্থা আশংকাজনক। এই ঘটনার পর হামলাকারীরা উপজেলার জামপুর ইউনিয়নের পাকুন্ডা গাবতলী পূজা মন্ডবেও হামলা ও ভাঙচুর চালায়। এসময় হামলাকারীরা ৬টি প্রতিমা ভাঙচুর ও মন্দিরের বিভিন্ন আসবাবপত্র ভাঙচুর করে। ঘটনার পর থেকে পুরো পাকুন্ডা এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন রাখতে ওই এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। রাতে জেলা পুলিশের উধ্বর্তন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

নারায়ণগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সম্পাদক, বঙ্গবন্ধু মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাধীনতা চিকিৎসা পরিষদ (স্বাচিপ) এর সাংগঠনিক সম্পাদক ও সোনারগাঁ থানা আওয়ামলীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য ডাঃ আবু জাফর চৌধুরী বিরু জানান, সদ্য ঘোষিত সোনারগাঁ থানা আওয়ামীলীগের আহবায়ক কমিটির সদস্যদের যে কোন ধরনের কার্যক্রম প্রতিহত করতে একটি সন্ত্রাসী চক্র সক্রিয় হয়ে উঠেছে। তারা পূজা মন্ডব পরিদর্শনে যাওয়ার তার গাড়ী বহরে হামলা, ভাঙচুর ও লুটপাট চালিয়েছে। পাকুন্ডা এলাকায় হুমায়ুন মেম্বারের বাড়ির সামনে এ হামলা চালানো হয়। হামলায় নেতৃত্ব দেয় জামপুর ইউপির সাবেক সদস্য হুমায়ুন মেম্বার, তার ছেলে রোমান, রুবেল ও শ্যালক রিপন। হামলাকারীরা এসময় রিভারবল দিয়ে গুলি করারও চেষ্টা চালায়। হামলাকারীরা তার সমর্থিত ৬ জন নেতা-কর্মীকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে আহত করেছে। তিনি আরও জানান, উপজেলার তিনটি পূজা মন্ডব পরিদর্শন শেষে ওই এলাকায় যাওয়ার পথে তার গাড়ী বহর এ হামলা চালানো হয়। হামলাকারীরা সম্পূর্ণ পরিকল্পিতভাবে এ হামলা চালিয়েছে। এ ঘটনার পর পূজা মন্ডবে আমাকে নিমন্ত্রণ করায় হামলাকারীরা সম্পূর্ণ পরিকল্পিতভাবে পাকুন্ডা গাবতলী পূজা মন্ডবেও হামলা, ভাঙচুর চালিয়েছে।

তবে এ অভিযোগ অস্বীকার করে সাবেক ইউপি সদস্য ও বিতর্কিত আওয়ামীলীগ নেতা হুমায়ুন মেম্বার জানান, ডাঃ আবু জাফর চৌধুরী বিরুর সমর্থিত লোকজনই তার লোকজনদের ওপর হামলা চালিয়েছে। হামলায় তার পক্ষের কমপক্ষে ৪ জন আহত হয়েছে। জামপুর পাকুন্ডা গাবতলী পূজা মন্ডবের সভাপতি হরি সুধন বিশ্বাস জানান, জামপুর ইউপির সাবেক সদস্য হুমায়ুন মেম্বার, তার ছেলে রোমান, রুবেল ও শ্যালক রিপনের নেতৃত্বে আমাদের পূজা মন্ডবে হামলা, ভাঙচুর ও লুটপাট চালানো হয়েছে। আওয়ামীলীগ নেতা ডাঃ বিরুকে পূজা মন্ডবে নিমন্ত্রন করায় সম্পূর্ণ পরিকল্পিতভাবে এ হামলা চালানো হয়েছে। হামলাকারীরা ৬টি প্রতিমা ও বিভিন্ন আসবাবপত্র ভাঙচুর করেছে। আমরা এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। এদিকে রাতে হামলার শিকার পাকুন্ডা গাবতলী পূজা মন্ডব পরিদর্শন করেন নারায়ণগঞ্জ জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (খ-সার্কেল) মোঃ খোরশেদ আলম, সোনারগাঁ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অঞ্জন কুমার সরকার, সোনারগাঁ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মনিরুজ্জামান, তালতলা তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ ওসি আহসান উল্লাহসহ পুলিশের পৃথক তিনটি দল।

সোনারগাঁ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মনিরুজ্জামান মনির জানান, পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে পাকুন্ডা এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পুরো ঘটনাটি তদন্ত করে দেখছে পুলিশ। পূজা মন্ডবে হামলার ঘটনায় জড়িত কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। হামলাকারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। সোনারগাঁ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অঞ্জন কুমার সরকার জানান, পাকুন্ডা গাবতলী পূজা মন্ডবে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা জানতে পেরে তিনি তাৎক্ষনিক ঘটনাস্থল পরিদর্শন যান। হামলাকারীরা লক্ষ্মীনারায়ন, স্বরসতীসহ কমপক্ষে ৬টি প্রতিমা ও আসবাবপত্র ভাঙচুর করেছে। ঘটনাটি অত্যন্ত দুঃখজনক। এ ঘটনার সাথে যারা জড়িত রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।