প্রশ্নফাঁস বন্ধে চ্যাম্পিয়ন আমরা : জবি উপাচার্য

90
ফয়সাল আরেফিন:  জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান বলেছেন, ভর্তি পরীক্ষা, নতুনত্ব এবং প্রশ্নফাঁস বন্ধে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় দেশের অন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের থেকে চ্যাম্পিয়ন এবং অন্যান্য চাকরির পরীক্ষায়ও জবির শিক্ষার্থীরা তূলনামূলকভাবে চ্যাম্পিয়ন।
তিনি আরও বলেন, সকল চাকরি পরীক্ষাতেই জবির শিক্ষার্থীরা পার্সেন্টেসের দিক থেকে এগিয়ে থাকসে। কারণ স্বচ্ছতার ভিত্তিতে মেধাবীদের অামরা নিচ্ছি। প্রশ্নফাঁস বন্ধে যত ধরনের পদক্ষেপ অামাদের নেওয়া দরকার নিয়েছি এবং সফল হয়েছি।
শনিবার (২১ সেপ্টেম্বর) সকালে জবির ইউনিট ১ বিজ্ঞান শাখার ভর্তি পরীক্ষার বিভিন্ন হল পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি।
এসময় তিনি বলেন, বাংলাদেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে বুয়েটের পর জবিই সম্পূৃর্ণ লিখিত পদ্ধতিতে পরীক্ষা শুরু করেছে। যেখানে প্রশ্নফাঁস হওয়ার কোনো সুযোগই নেই। কারণ লিখিত পদ্ধতিতে পরীক্ষা নেওয়া হচ্ছে, কোনো এমসিকিউ নাই। অামাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা অনেক পরিশ্রম করেছেন, দুই শিফটে পরীক্ষা নিচ্ছেন, নিজেদের ক্যাম্পাসেই।
এসময় উপাচার্য সাংবাদিকদের অারও জানান, এবছর প্রায় ৬৫.৫৬৬ জন অাবেদন করেছিল সেক্ষেত্রে প্রতি অাসনের বিপরীতে পরীক্ষার্থী ছিলো ৭৯.৪৭ জন। এদের মধ্য থেকে বাছাই করে নেওয়া হয়েছে ২৩,৭৭৬ জন, সেখানে প্রতি অাসনের বিপরীতে ২১ জন। যাদের সর্বনিম্ন জিপিএ ৯.৬৭। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় জবিকে অাংশিক অনুকরণ করেছে এবং রাজশাহী ও ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় পূর্ণাঙ্গ অনুকরণ করেছে।
উল্লেখ্য, কোনোরকম প্রশ্নফাঁসের অভিযোগ ছাড়াই জবির ইউনিট-১ এর পরীক্ষা দুইটি শিফটে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন ভবনে অনুষ্ঠিত হয়েছে। ১ম শিফটে সকাল১০টা থেকে ১১.৩০টা পর্যন্ত জোড় সংখ্যার রোল নম্বরধারী পরীক্ষার্থীদের এবং ২য় শিফটে বিকাল ৩টা থেকে ৪.৩০টা পর্যন্ত বিজোড় সংখ্যার রোল নম্বরধারী পরীক্ষার্থীদের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।