সিলেটের ওসমানীনগরে বাবা কর্তৃক শিশু মেয়ে ধর্ষিত

544
কালজয়ী রিপোর্ট:  সিলেট ওসমানীনগর উপজেলার দয়ামীর ইউনিয়নের রাইকদাড়া (নোয়াগাঁও) গ্রামের মৃত সামছু মিয়ার ছেলে মাসুক মিয়ার বিরুদ্ধে তার নিজের শিশু মেয়েকে ধর্ষনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে ধর্ষিতার চাচী বাদী হয়ে ধর্ষিত শিশুর পিতা মাসুক মিয়ার বিরুদ্ধে রোববার ওসমানী নগর থানায় মামলা দায়ের করেছেন।মামলা নং ০১,তারিখ ০১/০৯/১৯। অভিযোগ সুএে জানা যায় ধর্ষিতা শিশুর  মা তার ৪ বোন রেখে প্রায় ছয় বছর  আগে মারা যান।এরপর পিতা মাসুক মিয়া একাধিক বিয়ে করলেও তার কোনো স্ত্রী বর্তমানে ঘরে নেই।ধর্ষিত শিশু মেয়েটি মাদরাসার বোডিংয়ে থেকে লেখা পড়া করে।মেয়েটি বাড়িতে গেলে তার পিতা মাসুক মিয়া তার মেয়েকে একা পেয়ে কুপ্রস্তাব দিতো।এতে মেয়ে রাজি নাহ হলে তাকে মেরে ফেলার ও হুমকি দিতো এরপরও মেয়ে তার পিতা মাসুক মিয়ার  কুপ্রস্তাবে রাজি হয়নি। এতে কৃপ্ত হয়ে মাসুক মিয়া তার মেয়েকে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে একাধিক বার তাকে ধর্ষন করে। সর্বশেষ গত ১৫ আগষ্ট মেয়ে বাড়িতে গেলে তাকে সে জোরপূর্বক ধর্ষন করে। অবশেষে মেয়েটি গত ৩০ শে আগষ্ট তার চাচী সুরেতুন বেগমকে এ বিষয় বলে। চাচী এ বিষয়টি শুনে এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিদের সাথে পরামর্শ করে রোববার থানায় এসে ধর্ষিত মেয়ে পিতা মাসুক মিয়ার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। তবে আসামীকে এখন ও আটক করতে পারেনি থানা পুলিশ।ধর্ষিত মেয়ের সাথে কথা বললে সে বলে আমার বাবা মাসুক মিয়া রমজানের আগ থেকে জোর করে আমার সাথে খারাপ কাজ করেছেন।আমি ভয়ে কাউকে কিছু বলিনি।আমার ছোট বোন বাড়িতে থাকে তাকে দেখার জন্য গত বৃহস্পতিবার বাড়িতে আসি আমি আমার পিতার ভয়ে রাতে আমার চাচীর ঘরে কাছে থাকি এবং চাচীকে ঘটনাটি আমি খুলে বলি। ওসমানীনগর থানার এসআই সুজিত চক্রবর্তী অভিযোগের সত্যতা স্বীকার করে বলেন আসামিকে আটকের চেষ্টা চলছে।
ওসি এস এম আল মামুন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন নির্যাতনের শিকার শিশুটিকে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য আমরা তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ও সিসি) প্রেরন করা হয়েছে। এবং ধর্ষক মাসুক মিয়াকে আটক করতে পুলিশি অভিযান চালানো হচ্ছে।