বগুড়ায় স্বামীর ছুরিকাঘাতে স্ত্রী নিহত

81

জিএম মিজান: বগুড়ায় মায়া খাতুন (১৮) নামের এক গৃহবধূ স্বামীর ছুরিকাঘাতে নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে বগুড়া সদরের বারবাকপুর মধ্যপাড়া বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। ছুরিকাঘাতে গুরুতর আহত মায়া হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার সকালে মৃত্যু হয়। এ হত্যাকা-ে জড়িত মায়ার স্বামী রাকিবুল হাসানকে (২০) বুধবার সকালে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। ময়না তদন্তের জন্য নিহতের মরাদেহ বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। জানা যায় বগুড়া সদর উপজেলার বারবাকপুর মধ্যপাড়া এলাকার আবু জাফরের ছেলে রাকিবুল হাসানের সঙ্গে প্রায় এক বছর আগে শিবগঞ্জ উপজেলার গৌরঘাট এলাকার তোজাম্মেল ওরফে বিশার মেয়ে মায়া খাতুনের বিয়ে হয়। রাকিবুল হাসান পেশায় একজন পৌরপরিচ্ছন্নতা কর্মী। তিনি বগুড়া পৌরসভায় মাস্টার রোলে কাজ করেন। তবে বিয়ের পর থেকে পারিবারিক নানা বিষয় নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে কলহ লেগেই থাকতো। মঙ্গলবার মধ্য রাতে তাদের মধ্যে আবারও ঝগড়া শুরু হয়। তারই এক পর্যায়ে রাকিবুল হাসান ধারালো ছুরি দিয়ে তার স্ত্রীর মায়ার পেটে আঘাত করেন। এতে তিনি চিৎকার দিলে শাশুড়িসহ প্রতিবেশীরা মায়া খাতুনকে উদ্ধার করে টিএমএসএম মেডিকেল কলেজ ও রফাতুল্লাহ কমিউনিটি হাসপাতালে ভর্তি করেন। বগুড়া সদর থানার ওসি (তদন্ত) রেজাউল করিম এ প্রতিবেদক-কে বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ দ্রুত হাসপাতালে ছুটে যায় এবং মায়া খাতুনের জন্য তিন ব্যাগ রক্তের ব্যবস্থা করে কিন্তু তার পরেও তাকে বাঁচানো সম্ভব হয়নি। বুধবার সকাল ৯টার সময় ওই হাসপাতালেই তার মৃত্যু হয়। বগুড়া সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সনাতন চক্রবর্তী এ প্রতিবেদক-কে বলেন, মায়া খাতুনকে ছুরিকাঘাতের খবর পাওয়ার পর থেকেই পুলিশ তার স্বামী রাকিবুল হাসানকে খুঁজছিল। বুধবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে তাকে শহরের মাটিডালি এলাকা থেকে গ্রেফতার ও হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত ছুড়ি উদ্ধার করা হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে রাকিবুল জানিয়েছে দাম্পত্য কলহের জেরেই এ হত্যাকান্ড ঘটিয়াছে, এবং মামলার প্রস্ততি চলছে।