দালালের খপ্পরে সৌদি থেকে লাশ হয়ে ফিরল শাহনাজ

98

শাহাদাৎ হোসেন চৌধুরী শিপনঃ এবার নারায়ণগঞ্জের বন্দর থানার শাহনাজ নামের এক নারী গৃহকর্তার নির্যাতনে লাশ হয়ে দেশে ফিরেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। মৃত্যুর ৫০ দিন বাদে গতকাল মঙ্গলবার সকালের দিকে এমিরেটস এয়ারলাইনসের একটি ফ্লাইটে করে শাহনাজের মরদেহ এসে পৌঁছায় শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে।

নিহত শাহনাজ জেলার বন্দর থানার চুনাবুড়া গ্রামের আছির উদ্দিনের স্ত্রী। গ্রামের দালালের খপ্পরে পড়ে এজেন্সির মাধ্যমে ভাগ্য পরিবর্তনের আশায় আট মাস পূর্বে সে সৌদি আরব পাড়ি জমিয়েছিলেন।

বিমানবন্দরের প্রবাসী কল্যাণ ডেস্কের উপসহকারি পরিচালক (ডিএডি) আনিসুজ্জামান জানিয়েছেন, শাহনাজের মৃতদেহ তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ সময় ওয়েজ আর্নার্স ওয়েলফেয়ার বোর্ডের পক্ষ থেকে দাফন খরচ বাবদ তাদের ৩৫ হাজার টাকা দেওয়া হয়েছে। আর মৃত্যু বাবদ ক্ষতিপূরণের টাকা পরবর্তী সময়ে দেওয়া হবে।

শাহনাজের পরিবারের জানায়, গত জুনের ৩০ তারিখে গৃহকর্তা অবগত করেন, শাহনাজ স্ট্রোকে মারা গেছে এবং সৌদিতেই লাশ দাফন করে দিতে চেয়েছিলেন। শেষ পর্যন্ত পরিবারের দাবির মুখে ৫০ দিন পর লাশ পাঠাতে বাধ্য হন ওই গৃহকর্তা।

তাদের অভিযোগ, আট মাস সৌদিতে গেলেও মাত্র তিন মাসের বেতন দেওয়া হয়েছিলো শাহনাজকে। সে অসুস্থ হলেও তাকে কোনো প্রকার চিকিৎসা দেওয়া হয়নি। সৌদিতে যাওয়ার পর শাহনাজ আট মাসে মাত্র সাতবার দেশে ফোন করেন। কিন্তু যেই নম্বর থেকে সে ফোন করেছিলো সেই নম্বরে আবার যোগাযোগ করলে তাকে পাওয়া যেতো না।

তারা জানান, সৌদি আরবে শাহনাজের নিয়োগকর্তার পরিবারের দাবি, শাহনাজ আত্মহত্যা করেছেন। কিন্তু বিভিন্ন নির্যাতনেই শাহনাজের মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ পরিবারের।

নিহতের ছেলে সজীব জানান, তার মায়ের সঙ্গে সর্বশেষ কথা হয় গত রমজানের ঈদের আগে। তখন বলেছিলেন তিনি খুব অসুস্থ। সৌদি আরবের ওষুধ তার শরীরে কাজ করছিল না। তাই তাকে যেন প্রেসারের ওষুধ পাঠানো হয়।

তিনি আরও বলেন, মালিকরা মাকে আরও একটা বাসায় কাজ করাইত বলে জানিেেয়ছিল। তার প্রেসারও বাড়তি ছিল বলেই ওষুধ পাঠাতে বলে কিন্তু তা আর পাঠাইতে পারলাম না।