কুমিল্লায় যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতীয় শোক দিবস পালিত

82

স্টাফ রিপোর্ট: কুমিল্লায় ১৫ই আগস্ট জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে মিলাদ মাহফিল ও আলোচনা সভা  ও কাঙ্গালী ভোজ অনুষ্ঠিত হয়েছে। আজ ১৫ই আগস্ট মঙ্গলবার কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ কর্তৃক এ মিলাদ মাহফিল ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত মিলাদ মাহফিল ও আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন, কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের অর্থ মন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা (লোটাস) কামাল। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য, সাবেক আইন মন্ত্রী আব্দুল মতিন খসরু এমপি, প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন, কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সাবেক রেলপথ মন্ত্রী মোঃ মুজিবুল হক এমপি।

অনুষ্ঠানে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা (লোটাস) কামাল বলেন, “জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দেহের রক্ত যার ধমনীতে প্রবাহমান তিনি আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা। আজ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ অনেক দূর এগিয়ে গেছে। বঙ্গবন্ধু কন্যার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ ৪০তম বৃহৎ অর্থনীতির দেশ। আর মাত্র ১১ বছরের মাথায় বাংলাদেশ হবে, ৩০তম অর্থনীতির দেশ। ‘৪০ সালের মধ্যে বাংলাদেশ হবে বঙ্গবন্ধুর উন্নত সোনার বাংলা। তখন সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, জাপানও আমাদের পেছনে থাকবে। আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুদক্ষ ও যোগ্য নেতৃত্বে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ।

অনুষ্ঠানে সাবেক আইন মন্ত্রী আব্দুল মতিন খসরু বলেন, যে জিয়াউর রহমান বঙ্গবন্ধুর খুনীদের বিচার না করে তাদের বিভিন্ন দূতাবাস সহ নানাহ দপ্তরে চাকুরী দিয়ে পুরষ্কৃত করেছিল। আর খুনী চক্র বঙ্গবন্ধু হত্যা কান্ডের কোন বিচার করা যাবে না বলে একটি কাল আইন তৈরী জিয়ার সহায়তায়৷ অপর দিকে বেগম জিয়া খুনী রশিদ কে কুমিল্লার চান্দিনা থেকে সংসদ সদস্য বানিয়ে সংসদে বসায়। বেগম জিয়া বঙ্গবন্ধুর পরিবারের সঙ্গে গভীর সম্পর্ক ছিল। তিনি ওই খুনী চক্রের প্রশ্রয় দিয়েছেন তাই তিনি সমান অপরাধী। তার ছেলে তারেক জিয়া দেশের হাজার হাজার কোটি টাকা চুরি করে পাচার করেছে। তারেক জিয়া ও আদালতের রায়ে দন্ডিত আসামি। খালেদা জিয়া কে বর্তমান সরকার শাস্তি দেয়নি, দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট । তিনি তার প্রাপ্য ফল ভোগ করছেন।

সাবেক রেলপথ মন্ত্রী মোঃ মুজিবুল হক এমপি বলেন, “আজ ১৫ই আগস্ট। আজকের এই দিনের কালো রাতে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নৃশংসভাবে স্বপরিবারে হত্যা করা হয়ে। ওই নরপশুরা শুধু হত্যা করেই ক্ষান্ত হয়নি। তারা জাতির পিতার হত্যার বিচার যেন আর না হয়, সেজন্য ইমডেমনিটি (দায়মুক্তি) অধ্যাদেশ জারি করে। পরবর্তীতে ক্ষমতায় আসার পর শেখ হাসিনার সরকার এই অধ্যাদেশ বাতিল করে বিচারের পথ খুলে দেন। বঙ্গবন্ধুর খুনীদের মধ্যে যাদের রায় কার্যকর বাকী আছে। তাদেরকেও বিদেশ থেকে দেশে এনে আইন অনুযায়ী রায় কার্যকর করা হবে।

আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, ১৫ই আগস্টের আজকের দিনে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্বপরিবারে হত্যা করা হয়। ঘাতকরা সেদিন বঙ্গবন্ধুর কনিষ্ঠ পুত্র শিশু রাসেলকেও ক্ষমা করেনি। আজকের দেশরত্ন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও শেখ রেহারা বিদেশে থাকার কারণে প্রাণে বেঁচে যায়। নাহলে ঘাতকের বুলেটে তাদেরকেও সেদিন প্রাণ দিতে হতো। অনুষ্ঠানে বক্তারা বঙ্গবন্ধুর অবশিষ্ট খুনীদের দেশে এনে রায় কার্যকরের দাবী জানান।

১৫ই আগস্টের জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা সভায় এছাড়াও বক্তব্য রাখেন, কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি জসীম উদ্দিন চৌধুরী, আলকাসুর রহমান কোকা ও মফিজুর রহমান বাবলু, কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ হোসেন স্বপন, আব্দুল করিম মজুমদার,সাংগঠনিক সম্পাদক পার্থ সারথী দত্ত,প্রচার সম্পাদক আবুল কালাম, দপ্তর সম্পাদক রুপম মজুমদার,যুব ও ক্রিড়া সম্পাদক খালেদ আহম্মেদ চঞ্চল,বন ও পরিবেশ সম্পাদক ফরহাদুল মিজান,সাংস্কৃতিক সম্পাদক আশিকুন নবী বাপ্পী,উপ-দপ্তর সম্পাদক মোঃ শহিদুল্লাহ এবং আলোচনায় অংশ গ্রহণ করেণ জেলা যুবলীগ,জেলা ছাত্রলীগ সহ অংঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেত্রিবৃন্দ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here