সরাইলে ব্রীজ মেরামতের টাকা পকেটে !

88
মো: তাসলিম উদ্দিন: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলার মেঘনা নদীর তীরবর্তী পানিশ্বর বাজারে ঐতিহ্যবাহী জাফর খালের ওপর নির্মিত “বন্ধু ব্রীজ” সংস্কারের অভাবে এখন মরণফাঁদে পরিণত হয়েছে। চলাচলের প্রয়োজনে মানুষ ঝুঁকি নিয়েই লোহার তৈরি এই ব্রীজ দিয়ে পারাপার হচ্ছেন। অথচ অনুমান দেড় বছর আগে তৎকালীন উপজেলা চেয়ারম্যান আবদুর রহমান একটি বিশেষ বরাদ্দ থেকে ৭৫ হাজার টাকা দেন এ ঝুঁকিপূর্ণ ব্রীজ মেরামতের জন্য। অভিযোগ আছে, পানিশ্বর ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউপি আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. দ্বীন ইসলাম এ ব্রীজের কোন প্রকার কাজ না করেই সংশ্লিষ্ট দফতরকে ম্যানেজ করে সেই বরাদ্দের টাকা নিজের পকেটে ঢুকিয়েছেন।
স্থানীয় লোকজন জানান, বিভিন্ন ব্যবসার কেন্দ্রস্থল পানিশ্বর বাজারের মাঝখান দিয়ে বয়ে গেছে জাফরখাল। এতে বাজারটি দু’ভাগে বিভক্ত হওয়ায় মানুষের নানা দূর্ভোগ বছরের পর বছর যাবত। প্রায় ছয় বছর আগে তৎকালীন সরাইল উপজেলা নির্বাহী অফিসার এমরান হোসেন, সেই এলাকার মানুষদের দীর্ঘ বছরের দূর্ভোগ লাগবে জাফরখালের ওপর এই লোহার “বন্ধু ব্রীজ” তৈরি করিয়ে দেন। এ ব্যাপারে জানতে যোগাযোগ করলে ইউপি চেয়ারম্যান দ্বীন ইসলাম এ প্রতিবেদকের কাছে সেই বরাদ্দের কথা স্বীকার করে বলেন, ৭৫ হাজার টাকা আমার কাছেই আছে। এই টাকার সঙ্গে আরেকটি অন্য বরাদ্দের টাকা একত্র করে অচিরেই এই ঝুঁকিপূর্ণ লোহার ব্রীজের মেরামত কাজ করানো হবে। তবে ইউপি চেয়ারম্যান স্বীকার করেন “সরকারি বরাদ্দের টাকা এইভাবে হস্তমজুদ রাখার বিধান নেই।”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here