গল্প- ভালোবাসাটুকু-মনিরুল কবির বাধন

134

কালজয়ী রিপোর্ট: সবে ঘুম থেকে উঠলো ধ্রুব। এত তাড়াতাড়ি উঠার কোন ইচ্ছেই ছিল না,যদি না আজ বুধবার হত। দিনের হিসাবে আজ কোন বিশেষ দিন না হলে ও ধ্রুবর কাছে আজ দিন টা বিশেষ একটা। দীর্ঘ ৭মাসের জমানো ভালবাসো হয়তো আজ গোলাপ হয়ে ফুটবে। আজ রাত্রির সাথে তার দেখা হবে। দেখা করার সময় সে বিকাল ৩টা হলে ও দুপুরের ভেতর পুরোপুরো প্রস্তুত ধ্রুব। ২.২৫ এ শহরস্থ অবকাশ উদ্যানে উপস্থিত সে।পরনে রাত্রির পছন্দ সবুজ শার্টের সাথে কালো প্যান্ট।অবকাশ উদ্যানে একটু নিরিবিলি দেখে জায়গা পছন্দ করে রাত্রির জন্য অপেক্ষা করতে লাগলো সে….
.
বসে থাকতে থাকতে পুরোনো দিনের কথা গুলো মনে পড়তে লাগলো তার। ৯মাস আগে রাত্রির সাথে পরিচয় তার ফেসবুক।নিয়মিত চ্যাটিং চলতে চলতে এক সময় গভীর প্রেমে পরে একে অপরের। ধ্রুব বারবার দেখা করার কথা বললেও কিছুতেই রাজি হচ্ছিলো না রাত্রি। তার যুক্তি সম্পর্ক আরো গভীর করে তার পর দেখা। অনেক দেনা দস্তুর আর অনুরোধের ফল আজকের এ মুহুর্ত….-আপনি নিশ্চয় ধ্রুব? হঠাত্ প্রশ্নে বাস্তবে ফিরলো ধ্রুব। চোখ তুলে তাকাতেই চমকে উঠলো। নীল শাড়িতে জড়ানো একটা যেন পরী দাড়িয়ে আছে তার সামনে। মুখ হা করে তাকিয়েই থাকলো সে। তার রাত্রি হ্যাঁ তার রাত্রি ই দাড়িয়ে আছে তার সামনে। -আমি রাত্রি।সরি অনেক্ষন বসিয়ে রাখলাম। -না না ঠিক আছে।আমি ধ্রুব।-কি করে ঠিক আছে?দেখো প্রথম ডেটেই ৪৫ মিনিট লেট।
.
ঘড়িতে তাকিয়ে ধ্রুব দেখলো সত্যিই ৩টা ৪৫।কিন্তু এতটা সময় এত তাড়াতাড়ি কাটলো কি করে? -আমি কি কল্পনার মত? না, হেরে গেছি? -আমার কল্পনা তোমার কাছে শূন্য -নীলে কি নীল পরি হবো? -দেখলো নীল পরি ও পাগলো হয়ে যাবে -তুমি? -ভালবাসার -সব তো চুরি করে নিয়েছ -সত্যিই তো?
-বিশ্বাস নাই?
-নিজের থেকেও বেশি
-ভালবাসি
-জানি
-অনেক
-আমি বেশি
-না। আমি বেশি
-ঠিক আছে দুই জন ই বেশি
-কাদে মাথা রাখবো
-তোমারি তো……..
.
দিনের আলো প্রায় ফুরিয়ে যাচ্ছে। সন্ধ্যা প্রায় ঘনিয়ে এসেছে। ধ্রুবর কাদে মাথা দিয়ে ভবিষ্যত আঁকছে রাত্রি। রাত্রির নরম হাত নিয়ে খেলছে ধ্রুব। অনবরত কথার ফুলঝুড়ি ফুটছে দুই জনের মুখে। মান অভিমানের পর্ব ও হচ্ছে একটু আধটুকু। সময় গড়িয়ে যাছে নিজের মত করে। হঠাত্ ধ্রুবের মনে হল-জীবন টা তো সত্যিই সুখের…….