সোনারগাঁয়ে হত্যা মামলার আসামী হলেন সাংবাদিক

170

নিজস্ব প্রতিনিধি: নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার ললাটি মধ্যপাড়া গ্রামে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে বৃদ্ধ লাল মিয়া হত্যাকান্ডের প্রধান আসামী হাজী আনোয়ার সিএনএন বাংলা নামে একটি টিভি চ্যানেলের সাংবাদিক হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন।

রবিবার ২১ জুলাই বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল সিএনএন বাংলা টিভির প্রধান কার্যালয় থেকে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি হিসেবে দায়িত্ব পেয়েছেন সোনারগাঁ উপজেলার সনমান্দি ইউনিয়নের নাজিরপুর গ্রামের হাজী মোঃ আনোয়ার হোসেন।

উল্লেখ্য যে, উপজেলার কাঁচপুর ইউনিয়নের ললাটি মধ্যপাড়া এলাকায় ১৯ শতাংশ জমি নিয়ে খোরশেদ মিয়ার সাথে ভূমিদস্যু হাজী আনোয়ারের দ্বন্ধ ছিলো। গত ২১ শে ফেব্রুয়ারি দুপুরে হাজী আনোয়ার একদল অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী নিয়ে ওই জমিতে সাইনবোর্ড লাগিয়ে তা দখলে নেয়ার চেষ্টা করে। এসময় খোরশেদ মিয়ার ফুপা লাল মিয়া ঘটনাস্থলে গিয়ে জমি দখলে বাধা দিয়ে ভূমিদস্যু হাজী আনোয়ার, মহিউদ্দিন, সামাদ ভূঁইয়া, হাবুল্লা, গোলজার ও মিঠুসহ অন্যান্য সন্ত্রাসীরা লাল মিয়াকে এলোপাতারি পিটিয়ে আহত করে। পরে তাকে হাসপাতালে নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় লাল মিয়ার স্ত্রী আফিয়া খাতুন বাদি হয়ে হাজী আনোয়ার, মহিউদ্দিন, সামাদ ভূঁইয়া, হাবুল্লা, গোলজার, মিঠু, জসিম ও ইমরানসহ অজ্ঞাতনামা আরও ১৫/২০ জনকে আসামী করে থানায় একটি মামলা করেন। এই মামলায় ইতিমধ্যে সামাদ ভূঁইয়া, মহিউদ্দিন, হাবুল্লা ও গোলজারকে পুলিশ গ্রেফতার করলেও হত্যাকান্ডের মূলহোতা হাজী আনোয়ার রহস্যজনক কারণে এখনো ধরাছোঁয়ার বাইরে রয়ে গেছে।

নিহত লাল মিয়ার পরিবার ও এলাকাবাসীর অভিযোগ, হাজী আনোয়ার একজন আদম বেপারী ও ভূমিদস্যু। মন্ত্রী, এমপি ও বড় বড় পুলিশ অফিসারদের সঙ্গে ছবি তুলে ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে এলাকায় প্রভাব বিস্তারের মাধ্যমে ভূমিদস্যুতা ও আদম ব্যবসা করাই তার পেশা। এজন্য সে ‘নাতি গ্রুপ’ নামে একটি বাহিনীও তৈরী করেছে। যাদেরকে নিয়ে সে স্থানীয় সংসদ সদস্য লিয়াকত হোসেন খোকাকে ‘নানা’ বলে ডাকে। যদিও এমপি’র সঙ্গে তাদের রক্ত বা বংশীয় কোন সম্পর্ক নেই। প্রায় ৪ বছর পূর্বে আরেক কথিত নাতির বন্ধু পরিচয়ে হাজী আনোয়ার এমপি’কে ‘নানা’ বলে ডাকতে শুরু করে। এরপর থেকে সে নিজেকে মানুষের কাছে এমপি’র নাতি বলে পরিচয় দিয়ে আসছে। উপজেলার প্রতিটি স্কুল-কলেজের ছাত্র-ছাত্রীরা যেমন এমপি’কে মামা ও তার সহধর্মীনিকে মামী বলে ডাকে, ঠিক তেমনই আনোয়ারও একজন স্বঘোষিত নাতি।

এদিকে হাজী আনোয়ারের সাংবাদিকতায় নিয়োগ পাওয়া নিয়ে সোনারগাঁয়ের বিভিন্ন মহলে বিভিন্ন মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। সাংবাদিকতার মত মহান পেশায় হাজী আনোয়ারের মত একজন অযোগ্য লোক কিভাবে নিয়োগ পায়? এমন প্রশ্ন উঠেছে সাধারণ মানুষের মনে।