কৃষকের নাম ভাঙ্গিয়ে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার জোগসাজসে ধান ভর্তি ট্রাক ফেরত!

46

উজ্জ্বল রায়: কৃষকের নাম ভাঙ্গিয়ে বোরো ধান বিক্রি করতে আসা সিন্ডিগেট ব্যবসায়ীদের ধানভর্তি ট্রাক এলাকার চাপে ফেরত দেয়া হয়েছে। নড়াইলের নলদী খাদ্যগুদামে এ ঘটনা ঘটেছে। কৃষকের নাম ভাঙ্গিয়ে এলাকার কতিপয় সিন্ডিগেট ব্যবসায়ীরা এই খাদ্যগুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আহসান কবীরের জোগসাজসে ট্রাকে করে সকাল ৭টার দিকে ধান খাদ্যগুদামে ধান বিক্রি করতে আসে। আমাদের নড়াইল জেলা প্রতিনিধি উজ্জ্বল রায় জানান, কিন্তু হঠাৎ স্থানীয় লোকজনের জানাজানিতে ‘সিন্ডিগেট ব্যবসায়ী ও নড়াইলের নলদী খাদ্যগুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার দুর্বৃত্তায়ন পরিকল্পনা ভেস্তে যায় বলে এলাকার সচেতন নাগরিক ও ভুক্তভোগিদের অভিযোগ রয়েছে। এদিকে ঘটনাস্থলে উপস্থিত থাকা আরো কয়েকজন নাম প্রকাশে অনুচ্ছুক তাঁরা জানান, ওই সময় ধান দিতে আসা প্রকৃত কৃষকদের কাছ থেকে ধান সংগ্রহ থেকে ট্রাকে করে আসা ধান সংগ্রহে বেশি ব্যস্ত হয়ে পড়েন এ খাদ্যগুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ও তার সহকর্মীরা। কিন্তু হঠাৎ সাংবাদিক উপস্থিতি হওয়ায় পরিস্থিতি সামলাতে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আহসান কবীর তাঁর উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের ফোন দেন।

ফোন আলাপে সবটুকু না বুঝা গেলেও এতোটুকু বুঝতে পারলাম যে, ওনারা থাকতেই ধানভর্তি ট্রাক এখনই ফেরত দাও। ওসিএলএসডি হন্তদন্ত হয়ে দ্রুত ধানভর্তি ট্রাক খাদ্যগুদাম থেকে বের করে দেয়। কেনই বা আসলো ট্রাকভর্তি ধান আর কেনই বা ফেরত গেলো তার কোন জবাব মেলেনি ওই ওসিএলএসডি’র মুখ থেকে। ট্রাকে করে আসা ধান সম্পর্কে জানতে চাইলে নড়াইলের নলদী খাদ্যগুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আহসান কবীর জানান, কৃষকদের বাড়ি অনেক দুরের পথ সে কারণে সবাই মিলে ট্রাকে করে ধান খাদ্যগুদামে এনেছে মনে হয়। এ বিষয় বারইপাড়া গ্রামের আফছার নামের একজন কৃষক রয়েছেন উনি মনে হয় ম্যানেজ করে এনেছেন। এরপর ধানভর্তি ট্রাক ফেরৎ কেন দিলেন ওসিএলএসডিকে জানতে চাইলে তিনি কোন সন্তোষজনক জবাব দেয় নাই। এ ঘটনা সম্পর্কে জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মনোতোষ মজুমদারের নিকট জানতে চাইলে তিন মুঠোফোনে জানান, প্রকৃত কৃষক ছাড়া কোন সিন্ডিগেট ব্যবসায়ী বা আমার কেউও জড়িত থাকলে তাকেও ছাড় দেয়া হবে না। ট্রাকে করে আনা এখনই ফেরত দেয়ার জন্য আমি ওসিএলএসডি নলদীকে নির্দেশনা দিয়েছি।

এলাকার সূত্রে জানা যায়, বারইপাড়া গ্রামের আফছার নড়াইলের নলদী বাজারের বিশিষ্ট ধান, পাট ও তিশিমালের ব্যবসায়ী, তৌহিদ, নলদী ইউপি মেম্বর চুন্নু মিয়া, মেম্বর মোজাফ্ফার এই কয়েকজনের সাথে খাদ্যগুদামের ওসিএলএসডি আহসান কবীরের জোগসাজসে লাহুড়িয়া ইউনিয়নের ধান ট্রাককে করে আনা হয়। আরো জানাগেছে, কোন মাননিয়ন্ত্রণ ছাড়াই ধান সংগ্রহ করছেন এ ওসিএলএসডি। উল্লেখ্য, ফেরৎ যাওয়া ট্রাক মালিক অলোক কুন্ডু, চালক আরিফ শেখ, ট্রাকের নং-যশোর-ট ১১-৪২৩৬। অফিস সূত্রে জানাগেছে, নড়াইলের নলদী খাদ্যগুদামে লাহুড়িয়া, নোয়াগ্রাম, শালনগর ও নলদী ইউনিয়নের প্রকৃত কৃষক থেকে ১৬১ মে.টন বোরো ধান সংগ্রহ করবে খাদ্য মন্ত্রণালয়। আরো জানাগেছে, কৃষক নির্বাচনে প্রান্তিক এবং মহিলা কৃষকদের অগ্রাধিকার দিতে হবে। কোনক্রমেই বিনির্দেশ বহির্ভূত গম, ধান ও চাল সংগ্রহ করা যাবে না। ‘কেনই বা আসলো সকালে ট্রাকভর্তি ধান আর কেনই বা ফেরত গেলো তার কোন জবাব মেলেনি ওই ওসিএলএসডি’র মুখ থেকে।’ বিষয়টি দ্রুত তদন্ত করার দাবি জানিয়েছে এলাকাবাসি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here