সোনারগাঁওয়ে মোগড়াপাড়া চৌরাস্তায় রশিদ দিয়ে চাঁদা আদায়ের অভিযোগ

92

শাহাদাৎ হোসেন চৌধুরী শিপনঃ নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ে মোগড়াপাড়া চৌরাস্তায় চলছে যানবাহন থেকে একটি চাঁদাবাজ চক্রের অবৈধভাবে চাঁদা আদায়। একটি রশিদ দিয়ে প্রতিটি সিএনজি থেকে ১০ টাকা থেকে বিভিন্ন পর্যায়ের যানবাহনে ৩শ টাকা পর্যন্ত চাঁদা আদায় করছে চাঁদাবাজ চক্রটি। সম্প্রতি মোগরাপাড়া চৌরাস্তা থেকে চাঁদাবাজির অভিযোগ দুই চাঁদাবাজকে র‌্যাব-১১ গ্রেফতার করলেও তাদের চাঁদাবাজি বন্ধ হয়নি। এতে করে যানবাহন চালকরা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। শনিবার সরেজমিনে সিএনজি দিয়ে যাতায়াতের সময় এরকম রশিদ দিয়ে চাঁদা আদায় করতে দেখা যায়। এতে ক্ষুব্দ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন সিএনজি, অটোরিক্সা ও বিভিন্ন পরিবহণের চালকরা। চালকরা জানান, চাঁদার রশিদ ধরিয়ে দেয়া হয় গাড়ি থামিয়েই। চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি জানালে মারধর করা গাড়ি আটকে রাখাসহ নানা হয়রানি করা হয়। অনেক সময় গাড়ির গ্লাস ভাংচুর, চাকার হাওয়া ছেড়ে দেয়াও হয়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সিএনজি চালকরা জানান, রশিদের মাধ্যমে প্রতিদিন দু’বার করে তাদের কাছ থেকে এ সংগঠন চাঁদা আদায় করে থাকে। তাদের কল্যাণে এ টাকা ব্যয় করার কথা থাকলেও কোথায় যায় এ টাকা তারা বলতে পারছেন না। তিনি আরো জানান, সোনারগাঁয়ে তিন থেকে চারটি লাইন রয়েছে। সেখানে প্রায় সহস্রাধিক সিএনজি চলাচল করে। এ লাইনগুলো ১০-১২জন শ্রমিক টাকা উত্তোলন করে থাকে। ২০টাকা করে হলেও প্রতি মাসে ৬ লক্ষাধিক টাকা চাঁদাবাজি করা হয় মোগরাপাড়া চৌরাস্তায়। দ্রুত এসব চাঁদাবাজ চক্রের চাঁদাবাজি থেকে মুক্তির জন্য সংশ্লিষ্ট সকলের দৃষ্টি কামনা করেছেন।

একটি রশিদ বহিতে দেখা যায়, বাংলাদেশ অটরিক্সা শ্রমিকলীগ (অটোরিক্সা ও অটো টেম্পু চালকদের সমন্বয়ে গঠিত)। গভঃ রেজি নং বি-২০৪৪ শাখা অফিস মোগড়াপাড়া চৌরাস্তা, আঞ্চলিক কমিটি সোনারগাঁ, নারায়ণগঞ্জ, পরিচালনা ব্যয় আদায় রশিদ। এখানে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক ও আদায়কারীর স্বাক্ষরের স্থান থাকলেও কারো স্বাক্ষর নেই এতে। নেই কারো নাম ঠিকানাও। চাঁদা আদায়ের বিবরণে লেখা রয়েছে, শ্রমিক কল্যাণ তহবিল ২ টাকা, আঞ্চলিক কমিটি পরিচালনা খরচ ৩ টাকা, আদায়কারী ৩ টাকা, যানজট নিরসনের কাজে নিয়োজিত শ্রমিকের বেতন ২ টাকা। মোট ১০ টাকা আদায় করা হয়। তবে পরিবহন শ্রমিকরা দাবী করেছেন ১০ টাকার বদলে ২০ থেকে ৩ শত টাকা আদায় করা হয়।

অপরদিকে অত্র এলাকায় ব্যবসায়ীদের বিভিন্ন পণ্যর গাড়ি আসলে রাস্তা ক্লিয়ার করার ছলে ৫০ থেকে ১০০ টাকা চাঁদা দাবি করে আদায় করে আসছে। চাঁদা না দিলে অযথাই রাস্তা জ্যাম তৈরী করে সাধারণের চলাচলে বিগ্ন ঘটায়। কোন কোন সময় বহিরাগত পরিবহন চালকদের সাথে বাকবিতন্ডায় জড়িয়ে অপ্রিতীকর পরিস্থিতি তৈরী করে ।

রশিদে মোগরাপাড়া চৌরাস্তায় বাংলাদেশ অটরিক্সা শ্রমিকলীগের শাখা অফিসের কথা উল্লেখ থাকলেও চৌরাস্তায় খোঁজ নিয়ে এমন অফিসের কোন অস্তিত্ব খুজে পাওয়া যায়নি।

লাইনম্যান আনিছুর রহমান আনিছ জানান, রশিদ দিয়ে টাকা উত্তোলন করা হয়। উত্তোলিত টাকার একটি অংশ যানজট নিরসনে ব্যয় হয়ে থাকে। তাছাড়া এ টাকা সিএসজি অটোরিক্সা শ্রমিকদের কল্যাণে ব্যয় করা হয়। এ সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি তাদের চেনেন না বলে জানান।

সোনারগাঁও উপজেলা শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক আলমগীর হোসেন বলেন, এ সংগঠনটি ভুঁইফোড়। তবে এ চাঁদাবাজি সোনারগাঁ শ্রমিকলীগ সমর্থন করে না। তাদের বিষয়ে খোঁজ নিয়ে তাদের বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সোনারগাঁও থানার ওসি মনিরুজ্জামান বলেন, এ বিষয়ে কেউ অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here