ক্যাপ্টেন এবি তাজুল ইসলামকে মন্ত্রী হিসাবে দেখতে চায় বাঞ্ছারামপুরবাসী

399
মো.নাছির উদ্দিন:  গত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতার নিয়ে বিজয়ী হওয়ার পর দ্বিতীয় দফায় বাংলাদেশ বর্তমান নতুন মন্ত্রিসভায় কারা ঠাঁই পাচ্ছেন এ নিয়ে ইতোমধ্যে আলোচনার সৃষ্টি হয়েছে।
গত ডিসেম্বরের ৩০-১২-২০১৮ ইং তারিখে সারা দেশের মতোই  ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর থেকে মহাজোটের প্রার্থী বিজয়ী হওয়ার পর এ থেকে এবার মন্ত্রিসভায় কারা সুযোগ পাচ্ছেন এ নিয়ে বেশ আলোচনা ছিলো। এবার দ্বিতীয় দফায় বাংলাদেশ বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার মন্ত্রী পরিষদের কিছু মন্ত্রণালয়ে নতুন মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপ মন্ত্রী পদে নিয়োগ ও রদ বদল হতে যাচ্ছে এই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আলোচনায় শীর্ষে রয়েছেন পুরাতন মন্ত্রীসহ নতুন কয়েক জনের নাম। তার মধ্যে রয়েছে ব্রাহ্মণবাড়িয়া (৬) বাঞ্ছারামপুর আসনে এই সাবেক প্রতিমন্ত্রী মুক্তিযোদ্ধা  আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য  এদিকে বাঞ্ছারামপুর উপজেলায় বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ বিভিন্ন চায়ের দোকানে, আলোচনা, রাস্তা ঘাটে জনগনের মুখে মুখে এমনকি সামাজিক যোগাযোগ  মাধ্যম ফেইজবুকে  ক্যাপ্টেন এবি তাজুল ইসলাম এম পি কে মন্ত্রীর আসনে দেখার দাবি করে আসছেন । এদিকে ক্যাপ্টেন এবি তাজুল ইসলামের মন্ত্রীত্ব বিষয়ে জানতে চাইলে বাঞ্ছারামপুর  উপজেলার জনগণের সাথে কথা বলে জানাগেছে, আমরা বিপুল ভোটে ব্রাহ্মণবাড়িয়া (৬)বাঞ্ছারামপুর থেকে এমপি নির্বাচিত হয়েছেন। শুধু তাই নয় তিনি একজন সাবেক সফল প্রতিমন্ত্রী আধুনিক বাঞ্ছারামপুরের স্থাপতি, মাটি ও মানুষের নেতা এবং দুর্যোগ ব্যবস্হাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্হায়ী কমিটির সভাপতি ক্যাপ্টেন এ,বি তাজুল ইসলাম তাজ (অব.)এমপি
 অসংখ্য গুনাগুনের অধিকারী। সার্বিক বিবেচনা করলে সেই ক্ষেত্রে ক্যাপ্টেন  এবি তাজুল ইসলাম মন্ত্রীত্ব পেতে পারেন। এদিকে মন্ত্রীত্ব বিষয়ে জানতে চাইলে বাঞ্ছারামপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ ১৩ টি ইউনিয়ন চেয়ারম্যানগণ বলেন, তিনি মন্ত্রীত্ব পেলে দলের সাংগঠনিক কাঠামো ধরে রাখার পাশাপাশি উন্নয়নে ভুমিকা রাখতে পারবেন। এদিকে আওয়ামীলীগের মাঠ পযার্য়ের নেতা-কর্মীরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিকট  দাবী মন্ত্রীত্বের আসনে বসানোর জন্য দীর্ঘদিন জোর দাবী জানিয়ে আসছে। আমরা আশা করছি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী  আমাদের এই আশাটি পূর্ণ  করবেন। এছাড়া তিনি বাঞ্ছারামপুর শিক্ষা নগরী হিসাবে গড়ে তুলবেন ও গ্রামকে শহর করার লক্ষ্যে বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ করে যাচ্ছেন।