নদীখেকো আল-মোস্তফা ও তার দোসরদের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ

94

নিজস্ব প্রতিনিধি: সোনারগাঁওয়ের চিহ্নিত নদীখেকো আল-মোস্তফার ও তার দোসরদের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ উঠেছে। এঘটনায় নারায়নগঞ্জ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে একটি মামলা দায়ের হয়েছে। সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ‘ঘ’ অঞ্চল মামলাটি আমলে নেন এবং গুরুত্বসহকারে সোনারগাঁও থানা পুলিশকে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, সোনারগাঁও উপজেলার সাহাপুর গ্রামের মৃত হাজী আ. গফুরের ছেলে আ.আজিজ বাদী হয়ে নদীখেকো আল-মোস্তফাকে হুকুমের আসামী করে এবং তার ভাড়াটে সন্ত্রাসী হত্যা ও চাঁদাবাজীসহ একাধীক মামলার আসামী সাতভাইয়াপাড়া গ্রাামের মৃত আমিন উদ্দিনের ছেলে মো. হামিদুল এবং একই গ্রামের সাবেক কমিশনার হারুন অর রশিদ ফালানের ভাতিজা মারুফ হাসান শ্যামল ওরফে (ফেন্সি শ্যামল)কে আসামী করে মামলাটি দায়ের করেন।

অভিযোগ সূত্রে আরো জানা গেছে, আসামীরা গত শুক্রবার দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে আব্দুল আজিজের বাড়ীতে গিয়ে ৫ লাক্ষ টাকা চাঁদা দাবি করে। দাবিকৃত চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি জানালে আল-মোস্তফার নেতৃত্বে অন্যন্য আসামীরা আব্দুল আজিজকে পিটিয়ে গুরুতর জখম করে।

মামলার বাদী আব্দুল আজিজ জানায়, আল-মোস্তফা সোনারগাঁওয়ের চিহ্নিত নদীখেকো। তার ভাড়াটে গুন্ডা বাহিনীর ভয়ে এলাকার অনেকেই মুখ খুলতে সাহস পায় না। আল-মোস্তফার গুন্ডা বাহীনী প্রতিনিয়ত প্রকাশ্যে অস্ত্র নিয়ে ঘুড়াঘুড়ি ও মাদক (ফেন্সিডিল) সেবন করে থাকে। তাদের বিরূদ্ধে জোড়পূর্বক এলাকার অনেক নিরিহ কৃষকের কৃষি জমি ও নদী দখল করার অভিযোগ রয়েছে।