চান্দিনার জামিরাপাড়া মাদ্রাসায় কৃতী শিক্ষার্থী ও সেরা শিক্ষক সংবর্ধনা

402
আকিবুল ইসলাম হারেছঃ টানা ১৯ বারের মতো জামিরাপাড়া মিম হে ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার কৃতি ছাত্র-ছাত্রী ও দাখিল পরীক্ষায় জিপিএ-৫ প্রাপ্ত শিক্ষার্থীদের সংবর্ধিত করলো “মনিরুল ইসলাম সালেহা বেগম ফাউন্ডেশন”।
মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা আলহাজ্ব মনিরুল হক মজুমদারের ২০তম ওফাত দিবস উপলক্ষে মো. মোজাম্মেল মজুমদারের সহায়তায় নিয়মিতভাবে দীপ্তিময় এসব মেধাবীদের সংবর্ধনা দেয়ার মাধ্যমে উৎসাহ ও প্রণোদনা দিয়ে আসছে ‘মনিরুল ইসলাম সালেহা বেগম ফাউন্ডেশন।
শনিবার(১৩ জুলাই) সকাল ১১ টায় চান্দিনার জামিরাপাড়া মিম হে ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার অডিটোরিয়াম হলে দাখিল পরীক্ষায় জিপিএ-৫ প্রাপ্ত প্রায় ৭ জন শিক্ষার্থী ও মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষককে সংবর্ধনা দেয়া হয়।
সংবর্ধনা প্রাপ্ত ৭ জন শিক্ষার্থী হলো- মোসাম্মৎ কুলছুমা আক্তার,মোসাম্মৎ শারমিন আক্তার, মো.আসাদুল্লাহিল গালিব ,মো.নূরুন্নবী রবিন,মো.নাজমুল হাছান,মো.তোফাজ্জল হোসাইন,মোসাম্মৎ তানিয়া আক্তার।
নজরকাড়া এমন সংবর্ধনা পেয়ে আনন্দে উদ্বেল স্বপ্নবাজ মেধাবী ও তাদের অভিভাবকেরাও।মেধাবীদের মিলন মেলায় শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা প্রাণখুলে কথা বলার পাশাপাশি নিজেদের সাফল্যের গোপনমন্ত্র ও ভবিষ্যত জীবনের লক্ষ্যের কথাও জানিয়েছেন।
সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে মহিচাইল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আবু মুছা মজুমদারের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন ‘মনিরুল ইসলাম সালেহা বেগম ফাউন্ডেশন’র প্রতিষ্ঠাতা মো. মোজাম্মেল মজুমদার, মাদ্রাসা গভর্নিং বডির সদস্য মো.খালেক মজুমদার,ডা.শহীদুল্লাহ,মো.মজিব উল্লাহ,মো.হুমায়ুন মুহুরী,মাদ্রাসার সুপার মাওঃ মো.গোলাম মোস্তফা,সহ-সুপার মাওঃ আবুল হাশেম,সিনিয়র মৌলভী মাওঃ নজরুল ইসলাম,ইবি প্রধান মাওঃ শাহ আলম প্রমুখ।
সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে মেধাবীদের মেধার আলোয় দেশের মুখ উজ্জ্বল মন্তব্য করে বক্তারা বলেন, মেধাবীরা নিজেদের মেধার স্বাক্ষর রেখেছ। এ দেশকে একদিন তারাই নেতৃত্ব দেবে। মেধাবীরা দীপ্তিময়। তাদের হৃদয়ে রয়েছে গভীর দেশপ্রেম। নিয়ম নিষ্ঠা আর অধ্যাবসায়কে গুরুত্ব দিয়ে মেধাবীরা প্রতিভার অনন্য স্বাক্ষর রেখেছ। এ সাফল্য ধরে রাখতে হবে। নিজেদের তৈরি করতে হবে জীবনের পরীক্ষার জন্য।’
এদিকে চান্দিনা উপজেলার ২৭ টি মাদ্রাসার মধ্যে সেরা ‘প্রধান শিক্ষক’ নির্বাচিত হয়েছেন অত্র মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক মো.গোলাম মোস্তফা।
গত ২২ জুন শনিবার উপজেলা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদফতর তাকে উপজেলার সেরা ‘প্রধান শিক্ষক’ হিসাবে নির্বাচিত করে আনুষ্ঠানিকভাবে সনদ ও পুরস্কৃত করে।
প্রধান শিক্ষক গোলাম মোস্তফার সাথে কথা বলে জানা যায়,১৯৮০ সালে ধামতী আলিয়া মাদ্রাসা থেকে সম্মানের সহিত কামিল পাশ করেন।ঐ বছরেই শিক্ষকতা পেশায় যোগদানের পর দীর্ঘ ৩৯ বছরের শিক্ষকতা জীবনে তিনি ঢাকা নেছারিয়া সিনিয়র মাদ্রাসা,চান্দিনা আল আমিন কামিল মাদ্রাসা,সাহারপাড় গাউসুল আযম দাখিল মাদ্রাসার শিক্ষক ছিলেন।বর্তমানে গোলাম মোস্তফার তত্ত্বাবধানে জামিরাপাড়া মিম হে ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসা দাখিল পরীক্ষায় বেশ সুনাম অর্জন করে আসছে।
উপজেলার সেরা ‘প্রধান শিক্ষক’ হিসাবে নির্বাচিত হওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আমার এ অর্জন একক কোনো কৃতিত্ব নয়।মাদ্রাসার সব শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকদের ভালোবাসা এবং সহকর্মীদের সহযোগিতায় আমি এ সাফল্য অর্জন করেছি। ’ অনুষ্ঠানে এলাকার গণ্যমান্য ও সুশীল ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।