ঢাকা মহানগর উত্তর ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি নির্বাচিত হলেন কিশোরগঞ্জের সোহেল

226

মোজাম্মেল হক: বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ঢাকা মহানগর উত্তর শাখার পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানি স্বাক্ষরিত এ তালিকায় পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়। ঢাকা মহানগর উত্তর ছাত্রলীগের এই কমিটিতে সহ-সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন কিশোরগঞ্জর জেলার কটিয়াদী উপজেলার করগাঁও ইউনিয়নের ভাট্টা গ্রামের সন্তান সোহেল মিয়া।

সোহেল মিয়া ছাত্র জীবনের শুরু থেকেই দেশের ঐতিহ্যবাহী ছাত্র সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে সক্রিয় ভাবে জড়িত। তিনি চট্টগ্রাম কলেজের ছাত্রলীগের সক্রিয় কর্মী ছিলেন এবং পদার্থ বিজ্ঞান থেকে বিএসসি (অনার্স) শেষ করে ঢাকা তিতুমীর কলেজ থেকে এমএসসি করেন।

তিনি ঢাকা সেন্ট্রাল ল’ কলেজ থেকে এলএলবি ডিগ্রি অর্জন করেন এবং সেন্ট্রাল ল’ কলেজে আওয়ামী আইন ছাত্র পরিষদের রাজনীতির সাথে সক্রিয় ভাবে জড়িত ছিলেন। বর্তমানে তিনি ঢাকা মহানগর দক্ষিণ শাখার বঙ্গবন্ধু আইন ছাত্র পরিষদের সহ-সভাপতি হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন।

দীর্ঘ দিন ধরে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে সক্রিয় ভাবে জড়িত সোহেল মিয়া ছাত্রলীগের আসন ভিত্তিক কিশোরগঞ্জ-২ এ আওয়ামী লীগের প্রার্থী সাবেক আইজিপি, সচিব ও রাষ্ট্রদূত এবং বর্তমান সংসদ সদস্য নূর মোহাম্মদ এর পক্ষে নির্বাচন পরিচালনার সমন্বয়কের কমিটিতে সদস্য হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন।

সোহেল মিয়া বর্তমানে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ কেন্দ্রীয় কমিটিতে যুগ্ম আহ্বায়ক হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন। সোহেল মিয়ার পিতা করগাঁও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ও সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন। তার আপন বড় ভাই করগাঁও ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি ছিলেন।

তার পরিবারের সবাই আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে সক্রিয় ভাবে জড়িত রয়েছেন। তিনি বৃহত্তর ময়মনসিংহ আইন ছাত্র কল্যাণ পরিষদের ১নং সাংগঠনিক সম্পাদক পদেও দায়িত্ব পালন করছেন।

এছাড়াও সোহেল মিয়া বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের সাথে সক্রিয় ভাবে জড়িত রয়েছেন। বাংলাদেশ আওয়ামী আইন ছাত্র পরিষদের রাজনীতিতে মুজিব আদর্শের একজন একনিষ্ঠ সৈনিক ছিলেন। ক্লিন ইমেজের ছাত্র নেতা হিসেবেই সবার নিকট পরিচিত সোহেল মিয়া।

সোহেল মিয়া ঢাকা মহানগর উত্তর ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি নির্বাচিত হওয়ায় বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সংগ্রামী সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন এর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন ও তাকে অশেষ ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন এবং ভবিষ্যতেও পরিচ্ছন্ন রাজনীতি করে যেতে চান ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা লালন করে সামনের দিনগুলো মুক্তিযুদ্ধ ও গবেষণা খাতে কাজ করবেন বলে আশা ব্যক্ত করেন।

সোহেল মিয়া ঢাকা উত্তর ছাত্রলীগের মত গুরুত্বপূর্ণ একটি ইউনিটের পদ পেয়ে উচ্ছ্বাস প্রকাশের চেয়ে অর্পিত দায়িত্ব আস্থা ও বিশ্বাসের সাথে কাজ করবেন বলে আশা ব্যক্ত করেন । বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে মহানগর উত্তর ছাত্রলীগ পরিবার সর্বদা মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সকল নিয়ে একত্রে কাজ করার অঙ্গীকার করেন তিনি।

সোহেল মিয়া বলেন, শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে ছাত্রলীগ পরিবার যেকোন ত্যাগ স্বীকার করতে প্রস্তুত। বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছেন ত্রিশ লক্ষ শহীদের রক্তের বিনিময়ে। তাই আমাদের নতুন প্রজন্মকে বেশি করে মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস জানাতে হবে এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারণ ও লালন করে ছাত্রলীগের প্রতিটি নেতা কর্মী সোনার বাংলা গড়ার জন্য কাজ করতে হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here