শ্রীবরদীতে বন্ধুর ছোঁড়া গুলিতে বন্ধু গুলিবিদ্ধ: বন্ধু গ্রেফতার

176

মোঃ হামিদুর রহমান: শেরপুর জেলার শ্রীবরদী উপজেলার কাকিলাকুড়া ইউনিয়নের খামারপাড়া এলাকায় আলেক মিয়া (২৬) নামে এক যুবকে গুলি করে হত্যাচেষ্টার অভিযোগে সোহাগ মিয়া (২৪) নামে তার এক বন্ধুকে গ্রেফতার করেছে শ্রীবরদী থানার পুলিশ। ৫ জুলাই শুক্রবার দুপুরে ময়মনসিংহ মহানগরীর চরপাড়া এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করে শ্রীবরদী থানা পুলিশ। পরে তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে শুক্রবার বিকেল ৩টার দিকে তার খামারপাড়া এলাকার বাড়ী থেকে একটি বিদেশী পিস্তল, ৪ রাউন্ড গুলি এবং একটি ম্যাগজিন উদ্ধার করা হয়। গ্রেফতারকৃত সোহাগ মিয়া শ্রীবরদীর খামারপাড়া এলাকার মামুন মিয়ার ছেলে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শ্রীবরদীর খামারপাড়া এলাকার আব্দুস সালামের ছেলে আলেক মিয়া ও প্রতিবেশী মামুন মিয়ার ছেলে সোহাগ মিয়া পরষ্পর বন্ধু। বৃহস্পতিবার সকাল ১১টার দিকে আলেক মিয়াকে তার বন্ধু সোহাগ বাড়ী থেকে ডেকে তার বাড়ীতে নিয়ে যায়। ঘরের ভেতর আলেক মিয়ার মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে গুলি করে সোহাগ পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা সোহাগের ঘর থেকে গুলির মতো শব্দ শুনে ঘরের ভেতর গেলে মাথার ডানপাশের কানের ওপরে রক্তাক্ত গুরুতর অবস্থায় আলেক মিয়াকে উদ্ধার করে প্রথমে জামালপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে। এদিকে হাসপাতালের চিকিৎসকরা মাথায় গুলিবিদ্ধ হওয়ার কথা জানিয়ে তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করেন। পরে সেখান থেকে গুলিবিদ্ধ আলেক মিয়াকে গুরুতর অবস্থায় ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তির পর অবস্থার অবনতি হওয়ায় শুক্রবার তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার রাতে গুলিবিদ্ধ আলেক মিয়ার স্ত্রী মর্জিনা বেগম বাদী হয়ে সোহাগের বিরুদ্ধে হত্যাচেষ্টার মামলা দায়ের করলে পুলিশ অভিযানে নামে। শুক্রবার দুপুরে ময়মনসিংহ মহানগরীর চরপাড়া এলাকা থেকে সোহাগকে গ্রেপ্তার করে শ্রীবরদী থানা পুলিশ। পরে তাকে নিয়ে বিকেল ৩টার দিকে শ্রীবরদীর কাকিলাকুড়া ইউনিয়নের খামারপাড়ার বাড়ীতে অস্ত্র উদ্ধার অভিযান চালায় পুলিশ। এসময় সেহাগের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে ঘরের ভেতর থেকে একটি বিদেশী পিস্তল (আমেরিকার তৈরী ৭ পয়েন্ট ৬২ বোর), ৪ রাউন্ড পিস্তলের গুলি ও একটি ম্যাগজিন উদ্ধার করা হয়। পুলিশ সুপার কাজী আশরাফুল আজীম পিপিএম এবং জেলা পুলিশের উর্দ্ধতন কর্তকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

শ্রীবরদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রুহুল আমিন তালুকদার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, এ ঘটনায় হতাচেষ্টা ও অস্ত্র আইনে সোহাগের বিরুদ্ধে পৃথক দু’টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। একটি বিদেশী পিস্তল, ৪ রাউন্ড গুলি ও একটি ম্যাগজিন উদ্ধার করা হয়েছে। গুলিবিদ্ধ আলেক মিয়াকে ঢাকায় ভর্তি করা হয়েছে।