শেরপুর সরকারি কলেজের আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে হামলায় আহত-১

66

মোঃ হামিদুর রহমান: শেরপুর জেলা শহরেরর ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শেরপুর সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ২৯ জুন শনিবার দুপুর ২টার দিকে ছাত্রলীগের বিবদমান দু’টি গ্রুপের মধ্যে প্রতিপক্ষ একটি গ্রুপের হামলায় জুন্নুন তানভীর (২০) নামে শহর ছাত্রলীগ কর্মী আহত হয়েছেন। জুন্নুন তানভীর বিএম কলেজের এইচএসসি ২য় বর্ষের শিক্ষার্থী এবং বাগরাকসা মহল্লার মৃত আলমগীর হোসেনের ছেলে। এ ঘটনায় সজবরখিলা সড়কে পথচারী ও দোকান পাট এবং স্থানীয়দের মাঝে আতংক ছড়িয়ে পড়ে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, শেরপুর সরকারি কলেজে মীরগঞ্জ বাগরাকসা মহল্লার ছাত্রলীগের বিবদমান দু’টি গ্রুপের মধ্যে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে উত্তেজনা বিরাজ এবং টানা পড়েন চলে আসছিল। শনিবার দুপুরে জুন্নুন তানভীর শহরের সজবরখিলা এলাকার জোহা মোটরসাইকেল শো-রুমে যায়। পরে শো-রুম থেকে বের হওয়ার পর বিগত দিনের জেরধরে ছাত্রলীগ প্রতিপক্ষ গ্রুপ মীরগঞ্জ এলাকার ও কলেজ ছাত্রলীগ শাখার সভাপতি নয়ন তালুকদার ও সাধারণ সম্পাদক আঃ কুদ্দুস মোয়াজ’র নেতৃত্বে বেশ কয়েক জন কর্মী জুন্নুন উপর হামলা করা হয় বলে জুন্নুন দাবি করে। এসময় তাকে বেধরক মারধর করে। পরে তাকে উদ্ধার করে শেরপুর জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

অপরদিকে প্রতিপক্ষ গ্রুপের কলেজ শাখার সাধারণ সম্পাদক আঃ কুদ্দুস মোয়াজ’র কাছে এ ঘটনা সম্পর্কে জানতে চাইলে মুঠো ফোনে বলেন, বেশ কিছুদিন পূর্বে মীরগঞ্জ এলাকায় ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের সাথে বাগরাকসা মহল্লার ছাত্রলীগ নেতা কর্মীদের মাঝে হাতা হাতী ও সংঘর্ষ হয় এবং মীরগঞ্জ এলাকার ও ছাত্রলীগ কলেজ শাখার যুগ্ম সম্পাদক বিপুল আহম্মেদকে পিটিয়ে আহত করে। এ বিষয়টি পরবর্তীতে উভয় পক্ষের মধ্যে মিমাংসা হয়।

শনিবার দুপুরে কতিপয় ছাত্রলীগ কর্মী কলেজে আসার পথে জুন্নুন তানভীর উসকানি মূলক কথা বললে এ ঘটনার সূত্রপাত হয় এবং উদ্ভূত পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। এতে করে এ ঘটনার সাথে ছাত্রলীগ কলেজ শাখার নেতৃবৃন্দদের কোন সংশ্লিষ্ট নেই বলে দাবি করেন। খবর পেয়ে সদর থানার পুলিশ তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থল গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন এবং পুলিশ বিষয়টি খতিয়ে দেখছে।