দৈনিক কালজয়ী 

226
দৈনিক কালজয়ী
নূরুল আলম আবির 
নুঁয়ে পড়া জীবনের গল্প যেখানে ঠাঁই পায়
অগণিত বীরত্বের প্রকাশ যেখানে হয় হরহামেশা
দূর্নীতি আর মাদকের বিরুদ্ধে স্বোচ্ছার যে কাগজ
অধিকার বঞ্চিত মানুষের কথা বলে যে পত্রিকা—
তার নাম দৈনিক কালজয়ী।
সংবাদের পেছনের সংবাদ ছাপাতে যারা বদ্ধপরিকর
সেরা খবরটি সবার আগে দিতে চায় যে কাগজ
স্বাধীনতার পক্ষে মেধা ও মননের রোদেলা ক্যানভাসে
আজ হাস্যৌজ্জ্বল সবার পত্রিকা দৈনিক কালজয়ী।
একজন খোলা মনের মানুষ
মানবতার জন্য নিবেদিত প্রাণ যার প্রতিটি প্রয়াস
দেখা হলেই ভালোবাসার বৃষ্টিতে যিনি ভাসিয়ে দেন
তিনিই মিজানুর রহমান রাতুল ভাই,
দৈনিক কালজয়ীর গর্বিত সম্পাদক ও প্রকাশক।
আমার নূন্যতম যোগ্যতা যাচাই বাছাই না করে
কোনো কিছু একদম না ভেবে
কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সম্পাদক সম্পাদক
লোকমান হোসেন রুবেল ভাইয়ের মাত্র এক ভোটে
যিনি আমাকে অকপটে বিজয়ী ঘোষণা করে
হাতে তুলে দিলেন— ‘বিশেষ প্রতিনিধি’র প্রেস কার্ড
যা আমার সাংবাদিকতার জীবনে প্রথম ও সেরা স্বীকৃতি।
সেই থেকে আমি কালজয়ীর সাথে
শুরু করেছি কাজ
কতটুকু পেরেছি জানিনা
তবে চেষ্টা করেছি প্রাণপণ আলোর পথে পথ চলতে
কতটুকু পেরেছি, কতটুকু পারছি—
বিচার করবে মহাকাল।
দৈনিক কালজয়ী আমার আপনার সবার পত্রিকা।
একটি সংবাদ পত্রের প্রকাশ মানে
সভ্যতা ও সংস্কৃতির পথে বহুগুণ এগিয়ে যাওয়া।
সংবাদপত্র মানবতার কথা বলে
আলোহীন জীবনের উপর তারা তাঁক করে ক্যামরা
চোখের আড়ালের খবর নিয়ে আসে প্রদীপের আলোয়
দেশ ছাড়িয়ে বিশ্বময়— এটাই সাংবাদিকতার অঙ্গীকার।
সংবাদপত্র অধিকার আদায়ের শৈল্পিক এক হাতিয়ার
সংবাদপত্র মানবতার কথা বলে অবিরাম।
দৈনিক কালজয়ীও অবিরাম পথ চলুক আলোর পথে
সত্য ও সুন্দরের মোড়কে দৈনিক কালজয়ী হোক
আরো অনেক বেশি গর্বিত ও বীরোচিত।