ভারতের স্কুলে এবার কুরআনুল কারিমের সিলেবাস

101
সুমন গাঙ্গুলি: ধর্মীয় উত্তেজনা ও  অসহিষ্ণুতা  রোধ করতে   স্কুলগুলোতে  আল কুরআনসহ বিভিন্ন ধর্মের ধর্মীয় গ্রন্থ পাঠ্যবই হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করার প্রস্তাব দিয়েছেন। যাতে শিশুরা বিভিন্ন ধর্ম সম্পর্কে শৈশবই অবগত হন এবং ধর্ম সম্পর্কের তাদের সঠিক অর্জন হয় এবং ভ্রান্তি দূর হয়।
তিনি বলেন, ‘স্কুলের শিক্ষার্থীদের পৃথিবীর ছয়টি ধর্মের শ্রেষ্ঠ পবিত্র গ্রন্থ সম্পর্কে ধারণা থাকবে হবে। বিশেষ করে কুরআন ও বাইবেল। এর মাধ্যমে তাদের মধ্যে বিভিন্ন ধর্ম সম্পর্কে বিরাজিত ভ্রান্তি ধারণা দূরীভূত হয়ে যাবে। ভারতের নারী ও শিশুকল্যাণ  মন্ত্রী বলেন, ‘বর্তমান সময়ে বিশ্বে ধর্মীয় উত্তেজনা বিরাজ করছে। এর একটি কারণ হচ্ছে শিশুদের মধ্যে অন্যান্য ধর্ম সম্পর্কে অধিক জ্ঞান না থাকা। আর বড় হওয়ার পর ধর্মীয় শিক্ষা গ্রহণের সুযোগ না থাকা। ইতিমধ্যেই মেনেকা গান্ধী মানব সম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রকের কাছে লিখত ভাবে আহ্বান জানান যে, স্কুলগুলোতে সপ্তাহে কমপক্ষে দুই দিন বিশ্বের ছয়টি ধর্মের পবিত্র গ্রন্থের বিষয়ে যেন ক্লাস নেয়া হয়। তার বক্তব্য। “আমরা নিজেদের ধর্মীয় গ্রন্থচএছাড়াও আমি কুরআন পড়েছি। ইসলাম ধর্মে ধারক ও বাহক হজরত মুহাম্মাদ ও যুদ্ধের বিরোধিতা করতেন। আমাদের সময় স্কুলগুলোতে নৈতিকতা জ্ঞানের শিক্ষা দেয়া হত”ভারতের স্কুলগুলোতে ইসলামসহ অন্যান্য ধর্মের ধর্মীয় গ্রন্থগুলোর ওপর শিক্ষা দিলে সহিংসতা অনেকাংশে কমে যাবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here