কেমন আছে “তৃণমূলে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ”?

387
কালজয়ী রিপোর্ট: শিক্ষা,শান্তি ও প্রগতির পতাকাবাহী ,হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নিজ হাতে গড়া সংগঠন ,দক্ষিণ এশিয়ার সর্ববৃহৎ ছাত্রসংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ।১৯৪৮ সালের ৪ঠা জানুয়ারী থেকে আদর্শিক পথচলা , সোনার বাংলা বিনির্মানের কর্মী গড়ার পাঠশালা আমার-আপনার প্রাণপ্রিয় এই সংগঠন ।বর্তমান পরিস্থিতির দিকে নজর দিয়ে আমরা কি একবারও চিন্তা করেছি তৃণমূল পর্যায়ে এই প্রাণপ্রিয় সংগঠন কেমন আছে?কতটুকু ভালো আছে? টেকনাফ থেকে তেতুলিয়া ,রুপসা থেকে পাথুরিয়া ১,৪৭,৫৭০ বর্গকি.মি পরিধি জুড়ে রয়েছে এই সংগঠনের স্পন্দন।কিন্তু বাস্তবতায় লক্ষণীয় যে, প্রাণপ্রিয় সংগঠনের হাতে-গোনা কয়েকটা জায়গায় তাদের নেতৃত্ব,লক্ষ্য সীমাবদ্ধ! সরাসরি বলতে গেলে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ,ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রাণকেন্দ্র হওয়ায় এই জায়গায় বেশি সীমাবদ্ধ। কিন্তু বলতে চাই আমার সম্মানিত বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক বরাবর,আপনারা কি জানেন জেলা ইউনিটের অন্তর্গত অনেক থানা,ইউনিয়ন,ওয়ার্ড পর্যায়ে ইউনিটগুলো মেয়াদউর্ত্তীণ হতে হতে এখন এই ইউনিটগুলোর মৃত প্রায় অবস্থা।এইসমস্ত ইউনিটে নতুন নেতৃত্বের স্পন্দন না থাকায় অনুজরা হতাশায় ভুগে,মান-অভিমানে প্রায় অচল হয়ে যাচ্ছে,দূরে সরে যাচ্ছে এই ভালোবাসার সংগঠন থেকে!একটু খেয়াল করলেই দেখতে পারবেন ,অনেক থানা ইউনিট রয়েছে যার বয়স ৬-৭ বছর!স্থানীয় নেতৃবৃন্দের হস্তক্ষেপে এই ইউনিটগুলোর না আছে সঠিক সময়ে সম্মেলন ,না আছে নতুন নেতৃত্বের হাতে তুলে দেওয়ার ইচ্ছা!মানুষ হিসেবে পরিশ্রমের করার সাথে সাথে আমাদের স্বপ্ন থাকে ,থাকে সঠিক মূল্যায়নের স্বপ্ন।আপনারা বলতে পারেন,সাংগঠনিক কার্যক্রম হিসেবে এই কাজগুলো জেলা ইউনিটের করার কথা ,আমরা কেন করবো!বলতে চাই,জেলা ইউনিটের নেতৃবৃন্দ স্থানীয় নেতাদের হস্তক্ষেপের কারণে প্রায় সময়ই ব্যর্থ হয় ,এড়িয়ে যায় এই গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপারগুলো ।কেন্দ্রীয় নির্বাহী সংসদের দ্বায়িত্ব জেলা ইউনিট গুলোকে এই ব্যাপারে দ্রুত কঠোর নির্দেশ প্রদানের মাধ্যমে তৃণমূল পর্যায়ে প্রতিটা ওয়ার্ড,ইউনিয়ন ,থানা ইউনিটকে ঢেলে সাজানো তবেই হবে স্বপ্নের সুসংগঠিত প্রাণের সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ।
লেখক হৃদয় ঘোষ,জবি ছাত্রলীগ কর্মী

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here