হত্যাকান্ডের জের ধরে আসামীদের বাড়ি লুটপাট ও ভাংচুর!

56

উজ্জ্বল রায়: নড়াইল সদর উপজেলার শালিখা গ্রামে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য ডাবলু শেখকে কুপিয়ে হত্যাকা-ের মামলার আসামীদের বাড়ি ভাংচুর ও লুটপাট করেছে বাদি পক্ষের লোকজন। ফলে জনমানবশূণ্য হয়ে পড়েছে কামালপ্রতাপ গ্রামের একাংশ। আমাদের নড়াইল জেলা প্রতিনিধি জানান, পারিবারিক সূত্র জানায়, গত ২৫ এপ্রিল রাত পৌনে ১০টার দিকে নড়াইল সদর উপজেলার শালিখা বাজারে অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য ডাবলু শেখ খুন হন। নিহত ডাবলু ২০১২ সালে সেনাবাহিনীর চাকুরি থেকে অবসরে আসেন। তিনি পুরাতন নড়াইল সদর উপজেলার শালিখা গ্রামের আব্দুস সালাম শেখের ছেলে।

এলাকাবাসী ও পুলিশ জানায়, নড়াইল সদর উপজেলার শালিখা বাজারে দোকানে টিভি দেখার সময় অতর্কিত ভাবে হামলা চালায় প্রতিপক্ষের লোকজন। এ সময় ডাবলু শেখের হাত, ঘাড় ও বুকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। হত্যাকা-ের পর নড়াইল থানায় ৩১ জনের নাম উল্লেখ করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়। হত্যা মামলা দায়েরের পর আসামী এবং তাদের পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা গ্রেফতারের ভয়ে গা ঢাকা দেয়। এ সুযোগকে কাজে লাগিয়ে বাদি পক্ষের লোকজন আসামীদের বাড়ি চড়াও হয়ে ভাংচুর ও মালামাল লুট করে নিয়ে যায়।
সরজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, আসামীদের কয়েকটি বাড়ি জনমানবশূণ্য। ঘরবাড়ি ভাংচুর করে লুটপাট করা হয়েছে। হত্যা মামলার আসামী এস এম মাহবুব আলম (বিদ্যুৎ) কামাল প্রতাপ এস জে ইউনিয়ন ইন্সটিটিউশন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের গ্রন্থাগারিক।

মাহবুব আলম (বিদ্যুৎ) এর মা সেলিনা বেগম অভিযোগ করেন, হত্যাকান্ডের ঘটনার পর থেকে প্রতিদিন বাদি পক্ষের লোকজন লুটপাট ও ভাংচুর চালিয়ে যাচ্ছে। গত ১৬ মে মামলার ২৬জন আসামী নড়াইল সদর উপজেলা ম্যাজিষ্ট্রেটের আদালতে আত্নসমর্পন করেন। বিজ্ঞ ম্যাজিষ্ট্রেট সব আসামীকে জেলহাজতে প্রেরণের আদেশ দেন। ২৬জন আসামী জেলহাজতে আটক হওয়ায় বাদী পক্ষের লোকজন ওইদিন রাতে আসামীদের বাড়ি হামলা চালিয়ে ব্যাপক ক্ষতিসাধন করে। এছাড়া মাঠে থাকা পাকা ধানসহ অন্যান্য ফসলও কেটে নিয়ে গেছে। এ ব্যাপারে সদর থানার ওসি মোঃ ইলিয়াছ হোসেন পিপি এম, আমাদের নড়াইল জেলা প্রতিনিধিকে জানান, প্রাথমিক পর্যায়ে কিছু অনাকাংখিত ঘটনা ঘটলেও বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত। এলাকায় শান্তি ও শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য পুলিশ টহল দিচ্ছে।

নড়াইলের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন, পিপি এম (বার), আমাদের নড়াইল জেলা প্রতিনিধিকে জানান, নড়াইল সদর উপজেলার শালিখা গ্রামে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য ডাবলু শেখকে কুপিয়ে হত্যাকা-ের মামলার আসামীদের বাড়ি ভাংচুর ও লুটপাট করেছে বাদি পক্ষের লোকজন। বর্তমানে পুলিশি সেবা জনগণের দোঁরগোড়ায় পৌঁছে দিতে নড়াইল জেলা পুলিশ অক্লান্ত পরিশ্রম করছে। তাদের এই পরিশ্রম বৃথা যেতে দেওয়াহবে না। পুলিশি সেবার অপব্যবহার করে কেউ যদি এগুলো সমাজে শুধু বিশৃঙ্খলাই সৃষ্টি করে। তাই সকলকে এগুলো পরিহার করা উচিৎ। বর্তমানে নড়াইলের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অবস্থা খুবই সন্তোষ জনক। সকলে মিলে নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করলে জনগণের সেবার মানআরও উন্নত হবে। যেহেতু মানুষের বিপদের সময়ের প্রধান আশ্রয়স্থল হলো পুলিশ সেহেতু পুলিশকে তার কাজের প্রতি আরও আন্তরিক হতে হবে। এছাড়াও ইয়াবা, জঙ্গি ও সন্ত্রাস নির্মূলে জিরো টলারেন্সের ভিত্তিতে কাজ করে যেতে হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here