উল্লাপাড়ায় ৫ বিধবার এক জনও পায়নি বিধবা ভাতার কার্ড

39

মাসুদ রানা: সিরাজগঞ্জ উল্লাপাড়া উপজেলায় বাঙ্গালা ইউনিয়নে ঋষিপাড়ায় মাত্র ২১টি পরিবার নিয়ে গঠিত রুহিদাস পাড়া। এরা সোনাতন ধর্মালাম্বি হিন্দু মুচি সম্প্রদায়ের লোক। এই পাড়ায় মাত্র ৫ জন বিধবা রুহিদাস আজ পর্যন্ত তাদের ভাগ্যে মেলেনি বিধবা ভাতার কার্ড।

অথচ ভোটের সময় তাদের ভোটেও নির্বাচিত হন চেয়ারম্যান ও মেম্বর। এ সম্প্রদায়ের লোকে এমনিতেই অতিকষ্টের মধ্যে দিনাপাত করে থাকে। তার মধ্যে দীর্ঘ দিন যাবৎ হলো স্বামী হারা,সংসারে রোজগারের মানুষ নাই। দুর্বিসহের মধ্যে দিনাপাত কাটাচ্ছেন তারা।এ সম্প্রদায়ের লোক দ্বারা কেউ কাজও করায় না। তাই নিরুপায় হয়ে কেহ বেছে নিয়েছে ভিক্ষাবৃত্তি। কিন্তু ভিক্ষাবৃত্তি হতে পরিত্রান চান তারা। দীর্ঘ দিন চেয়ারম্যান মেম্বরদের সাথে যোগাযগের পরও মেলেনি বিধবা ভাতার কার্ড। ওদের নামের পদবিতে রুহিদাস। এ পাড়ায় ২১ টি পরিবারের মধ্যে বিধবা আছে ৫ জন। এদের মধ্যে তিন জন দুথযুগেরও বেশি সময় ধরে বিধবা হয়ে আছেন। তবে এদের এক জনের কপালে জোটেনি বিধবা ভাতার কার্ড।

গঙ্গরামপুরের ঋষিপাড়ার বিধবারা হলেন- কিরনবালা রুহিদাস (৭০), মিনতি রুহিদাস (৫৫) রাধারানী রুহিদাস (৫৭), ভারতী রানী রুহিদাস (৬৫) ও ভিক্ষুক বুলবুলি রুহিদাস (৬৫)। এদের মধ্যে বুলবুলি রুহিদাস অভাবের তাড়নায় ভিক্ষা করেন বলে জানান স্থানীয়রা।

তার স্বামী প্রাণনাথ রুহিদাস প্রায় ২৬ বছর আগে মারা গেছে। এছাড়া কিরন বালার স্বামী প্রেম নাথ রুহিদাস ২৭ বছর আগে ও ভারতী রানীর স্বামী ভজেন রুহিদাস প্রায় ২৫ বছর আগে মারা গেছে বলে জানা যায়।

মিনতি রুহিদাসের স্বামী মঙ্গলা রুহিদাস প্রায় দেড় বছর আগে এবং রাধা রানীর স্বামী অনিল রুহিদাসের স্বামী প্রায় ৮ মাস আগে মারা গেছে বলে জানানো হয়। এরা জানায়, বিগত সময়ে এলাকার ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বর ও চেয়ারম্যানকে একাধিকবার বললেও তারা আমাদের প্রতি সুদৃষ্টি মেলেনি।

বাঙ্গালা ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মোঃ চাঁন মিয়া বলেন,রুহিদাস পাড়ার বিধবাদের কথা আমার স্মরনে আছে, সুযোগ আসলে আমি তাদের নাম দিয়ে দেব। তবে চেয়ারম্যান মহাদ্বয় যদি একটু স্মরন রাখেন তবে সবগুলো এক বারেই ব্যবস্থা করা সম্ভব হবে।

বাঙ্গালা ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ সোহেল রানা বলেন, বিধবারা কেউ আমার সাথে যোগাযোগ করেনি। ঐ এলাকার ইউপি সদস্যও বিধবাদের বিষয়ে আমাকে কিছু বলেনি। আজ শুনলাম ভাতা বঞ্চচিতরা যেন সরাসরি আমার সাথে যোগাযোগ করেন।আমি তাদের ভাতার বিষয়টি সরকারি বিধি মোতাবেক গুরুত্বের সাথে দেখবো

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here