দ্বিতীয় মেঘনা ও গোমতী সেতু খুলছে আগামী ২৫ মে

337

শাহাদাৎ হোসেন চৌধুরী শিপন: আগামী ২৫ মে উদ্বোধন করার মধ্যে দিয়ে জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত হচ্ছে বহুল প্রতিক্ষিত দ্বিতীয় মেঘনা ও গোমতী সেতু। গত ১৬ মার্চ উদ্বোধন করা হয় দ্বিতীয় কাঁচপুর সেতু। ঢাকা – চট্রগ্রাম মহা সড়কের তিনটি হুরুত্বপূর্ণ চারলেন বিশিষ্ট সেতু পুরোপুরি ভাবে ব্যবহার হলে বিগত দিনের অনাকাঙ্খিত তীব্র যানজটের অবসান হবে। ঢাকা থেকে চট্রগ্রাম যাওয়ার সময় কমে আসবে দেড় থেকে দুই ঘন্টা ।

উল্লেখ্য যে, আগের তিনটি সেতুই ছিল দুই লেন বিশিষ্ট। মন্ত্রনালয়ের সূত্রে জানা যায়, তিনটি সেতু নির্মানে ব্যয় করা হয়েছে ৮ হাজার ৪৮৬ কোটি টাকা ,তন্মধ্য জাপান আন্তর্জাতিক সহযোগী সংস্থা (জাইকা) দিয়েছে ৬ হাজার ৪২৯ কোটি টাকা আর বাকী অর্থায়ন বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে জোগান দেওয়া হয়েছে।
২০১৬ সালে জুলাই মাসে চার হাজার কোটি টাকা ব্যয় করে ঢাকা চট্রগ্রাম মহাসড়কের চারলেন সড়ক চালু হওয়ার পর তিনটি সেতু চার লেন করার প্রয়োজন হয়ে পড়ে।

সড়ক ও জনপদ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, দ্বিতীয় মেঘনা সেতুর দৈর্ঘ্য ৯৩০ মিটা আর দ্বিতীয় গোমতী সেতুর দৈর্ঘ্য ১ হাজার ৪১০ মিটার ,এই দুটি সেতু নির্মাণে নিয়োজিত আছে যৌথ ভাবে জাপানের ওবায়সি কর্পোরেশন এবং সিজিকু জেএফই ইঞ্জিনিয়ারিং কর্পোরেশন।

পবিত্র ঈদুল ফিতরের আগে এই দুটি সেতু উদ্বোধন করা হবে। কাঁচপুর ব্রীজ উদ্বোধন কালে সেতু ও সড়ক মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের অসুস্থ থাকায় প্রদানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার রোগমুক্তির কামনা করে দেশ বাসীর কাছে দোয়া চেয়েছিল এবং ঘোষনা দিয়েছিলেন ওবায়দুল কাদের সুস্থ হয়ে আসার পর দুটি সেতু পরিদর্শনে আসবেন। সে সূত্র মোতাবেক আগামী ১৫ মে ওবায়দুল কাদের সাহেব দেশে আসার সম্ভবনা রয়েছে এবং ২৫ মে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যে দিয়ে দুটি সেতু উদ্বোধন করবেন বলে আশা ব্যক্ত করেছেন সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রনালয়ের সচিব নজরূল ইসলাম। তিনি মঙ্গলবার মেঘনা টোল প্লাজার অত্যাধুনিক ইলেক্ট্রনিক টোল আদায়ের সিস্টেমের ফাস্ট ট্রেক উদ্বোধনকালে আরো বলেন, বৈদ্যুতিক পক্রিয়ায় টোলপ্লাজায় কোন যানবাহন না থামিয়ে এবং নগদ অর্ধ ছাড়াই ব্যাংক একাউন্টের মাধ্যেমে টোল পরিশোধ করা যাবে। এই প্রযুক্তি ব্যবহারের ফলে মহাসড়কে যানজট অনেকটা কমে আসবে বলেও মন্তব্য করেন।

সরেজমিনে মেঘনা ও গোমতী সেতু পরিদর্শন করে দেখা যায় সেতুর লাইট পোস্টের কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে এবং সেতুর রেলিং এর রংয়ের কাজ শেষ হয়ে যাবে দুই এক দিনের মধ্যে পাশাপাশি উদ্ভোধন অনুষ্ঠানকে সামনে রেখে মোগড়াপাড়া চৌরাস্তা হইতে দাউদকান্দি পর্যন্ত রাস্তার ডিভাইডারের রংয়ের এবং পরিচ্ছন্নতার কাজ চলছে দ্রুততার সহিত।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here