চাঁপাইনবাবগঞ্জে শিশুপার্ক থাকলেও বিনোদন থেকে বঞ্চিত শিশুরা

155
মেহেদী হাসান সিয়াম: চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলায় শিশু পার্ক থাকলেও শিশুদের বিনোদনের কোনো সুব্যবস্থা নেই। জেলা প্রশাসকের কর্যলায়ের  সংলগ্ন শিশুদের খেলাধুলা ও বিনোদনের জন্য নির্মিত একমাত্র পার্কটি গো-চারণ ভূমিতে পরিণত হয়েছে। হয়েছে বখাটেদের আড্ডা। পার্কটি এখন ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়ে। প্রতিষ্ঠার পর দীর্ঘদিন পার হলেও এই শিশু পার্কটিতে আধুনিকতার ছোঁয়া কখনই লাগেনি। হয়নি কোনো সংস্কার কাজ। লোহার খেলনাগুলো মরিচা ধরে ব্যবহারের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। পার্কটি এখন গো-চারণ ভূমিতে পরিণত হয়েছে। পার্কের ভাঙা ফটক ভেদ করে গরু-ছাগল ঢুকে পড়ে অনায়াসে। আবার কখনও কখনও সন্ধ্যা হলে বখাটেদের আড্ডাও জমে উঠে।
পার্কের মাঠটি বিভিন্ন আগাছায় ভরে গেছে। শিশুদের কোথাও দারাবার বা খেলা করার কোন উপকরন নেই। ভাঙ্গা গেট দিয়ে অহরহ গরু-ছাগল ঢুকে মলমূত্র ত্যাগ করায় পার্কের পরিবেশ দুষিত হচ্ছে এ ব্যাপারে যেন দেখার কেউ নেই। ফলে কোমল মতি শিশুরা বঞ্চিত হচ্ছে তাদের বিনোদন থেকে।
এ সরকারের আমলে উপজেলা পরিষদ বাস্তবায়িত হলে শিশুদের চিত্ত বিনোদনের কথা চিন্তা করে জেলা প্রশাসকে কার্যালয়ের সংলগ্ন উত্তর পাশে গ্রিন-ভিউ স্কুলের পিছনে একটি শিশু পার্ক স্থাপন করা হয়। মাঠের ভিতরে শিশুদের চিত্ত বিনোদন এবং খেলার জন্য লোহার দোকনা,স্লিপ পার্ক ও বেঞ্চ নির্মাণ করা হয়। পার্কটি স্থাপনের পর কিছুসময় শিশুদের আনাগোনা বেড়ে গিয়েছিল।আর সংস্কারের কোন উদ্যোগ না নেওয়ায় আস্তে আস্তে শিশুদের খেলনাগুলো পুরোটাই ধংস হয়ে যায়। অকেজো খেলনাগুলো অনেকটা চুরি হয়ে গেছে বলেও অভিযোগ রয়েছে।স্হানীয়দের বসবাস এবং বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থাকা সত্তেও শিশুদের বিনোদন ও খেলাধুলার জন্য আজও কোন উদ্দ্যেগ বাস্তবায়ন করা হয়নি।চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলা উন্নয়নে উপজেলায় উন্নয়ন শিশু পার্কটির পরিধি বিস্তৃত্ব করে পযাপ্ত পরিমান খেলনার উপকরন, ও সৌদর্য বৃদ্ধি করত,যদি উপজেলার সম্মানিত অভিভাবকগণ সুদৃষ্টি দিয়ে বিবেচনা করে।
 গ্রিণভিউ স্কুলের ৫ম শ্রেণী পড়ুয়া মুনিরা খাতুন বলেন, শিশুদের জন্য নির্মিত শিশু পার্কে আমরা যেতে পারছি না। পার্কটিতে খেলনার কোন উপকরন নেই। নেই পরিস্কার পরিছন্নতা, খেলাধুলার জন্য তেমন পর্যাপ্ত জায়গা। ফলে আমরা বিনোদন বঞ্চিত হচ্ছি।
এ বিষয়ে স্থানীয় জনগন জানান,এলাকায় অনেক চাকুরীজীবি ও শিক্ষিত লোকের বসবাস। কিন্তু একমাত্র শিশু পার্কটি স্থাপিত হবার পর থেকে আজ পর্যন্ত শিশুদের বিনোদন ও খেলাধুলার কথা চিন্তা করে কেহই সংস্কার করেনি। তবে এর সংস্কার ও জায়গা বধিতকরন করা দরকার। যাতে আমাদের সবার বাচ্চারা শিশু পার্কটিতে খেলাধুলা ও বিনোদনের সুযোগ পায়।