সরাইলে মহান মে দিবস পালিত

89
মোঃ তাসলিম উদ্দিন: মহান মে দিবস আজ। শ্রমিকের বুকের তাজা রক্ত দিয়ে অধিকার আদায়ের গৌরবময় দিন। সারাবিশ্বেই দিবসটি যথাযোগ্য মর্যাদার সঙ্গে পালন করা হয়। দিবসটি প্রতিষ্ঠার পেছনে রয়েছে শ্রমিকদের রক্তঝরা আত্মত্যাগের ইতিহাস।দীর্ঘ শোষণ-বঞ্চনা-অত্যাচার আর নিপীড়নের বিরুদ্ধে ১৮৮৬ সালের পহেলা মে যুক্তরাষ্ট্রের শ্রমিকরা সব কল-কারখানায় শ্রমিক ধর্মঘটের ডাক দেন। আট ঘণ্টা কাজ এবং নায্য মজুরির দাবিতে সেদিন শ্রমিকরা কাজ বন্ধ করে দেন। লাল ঝাণ্ডা হাতে সেদিন প্রায় তিন লাখ শ্রমিক শিকাগো শহরের হে মার্কেটের সামনে বিক্ষোভ করেন। হে মার্কেটের সামনে শ্রমিকদের বিক্ষোভ সেদিন এক বিশাল জনসমুদ্রে পরিণত হয়। বিক্ষোভের একপর্যায়ে পুলিশ বিনা উস্কানিতে শ্রমিকদের ওপর নির্বিচারে গুলি চালায়। পুলিশের গুলিতে প্রায় ১০ জন শ্রমিক নিহত হন।হে মার্কেটে ১০ জন শ্রমিক নিহতের ঘটনায় শ্রমিক আন্দোলন ছড়িয়ে পড়ে সারাবিশ্বে। শ্রমিকদের সঙ্গে সেই আন্দোলনে সাধারণ ছাত্র-জনতাও সামিল হয়। বিশ্বজুড়ে তীব্র শ্রমিক আন্দোলন গড়ে ওঠে। যার ফলে যুক্তরাষ্ট্র শ্রমিকদের আট ঘণ্টা কাজের দাবি মেনে নিতে বাধ্য হয়।১৮৮৯ সালের ১৪ জুলাই প্যারিসে অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক শ্রমিক সম্মেলনে শিকাগোর শ্রমিকদের জীবনদান এবং আন্দোলনের স্বীকৃতি দিতে পহেলা মে ‘আন্তর্জাতিক শ্রমিক সংহতি দিবস’ হিসেবে ঘোষণা করে। এর পরের বছর ১৮৯০ সাল থেকে পহেলা মে শ্রমিক দিবস হিসেবে পালন করা হয়।” শ্রমিক- মালিক ঐক্যগড়ি উন্নয়নের শপথ করি”এ প্রতিপাদ্যকেসামনে রেখে সরাইল উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে মে দিবস পালন  উপলক্ষে রালী ও আলোচনাসভার আয়োজন করা হয়। বুধবার ( পহেলা মে) দিবসটি উপলক্ষে রালীটি উপজেলা পরিষদ চত্বর থেকে প্রধান প্রধান সড়ক ঘুরে পরিষদ মিলনায়তনে সরাইল উপজেলা নির্বাহীঅফিসার এ এস এম মোসার সভাপতিত্বে প্রধানঅতিথি ছিলেন সরাইল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ রফিক উদ্দিন ঠাকুর,উপজেলা পরিষদের ভাইস – চেয়ারম্যান মোঃ আবু হানিফ, উপজেলা মাধ্যমিক কর্মকর্তা সহিদ খালেদ জামিল খান, উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা মোসাঃ ফাতেমা বেগম, মৎস্য কর্মকর্তা মায়মুনা জাহান,সদর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর জব্বার, রনজিত কুমার দেবনাথ, সরাইল রিপোর্টস ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক মোঃ তাসলিম উদ্দিন,আওয়ামী লীগ নেতা মোঃ মাহফুজ আলী, মোঃ হেলাল মিয়া, শ্রমিক নেতা মোঃ ইনু মিয়াসহ উপজেলার কর্মরত প্রিন্ট, অনলাইন ওইলেক্টনিক মিডিয়া ও রাজনৈতিক, বিভিন্ন সংগটনের প্রধানগণ উপস্হিত ছিলেন। এখনও শ্রমিকরা তাদের প্রাপ্য মজুরি থেকে বঞ্চিত। দেশে এখনও মজুরি বৈষমের স্বীকার শ্রমিকরা। তাই মে দিবস শুধুমাত্রআনুষ্ঠানিকতার মধ্যে সীমাবদ্ধ না রেখে, শ্রমিকদের যথাযোগ্য প্রাপ্য ও সুযোগ-সুবিধা দিলেই মে দিবসের স্বার্থকতা আসবে বলে শ্রমিক সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা মনে করেন।