লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে ঝুঁকিতে ৯৫ ভাগ ভবন

54

মো: আবদুল কাদের: লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান, বহুতল আবাসিক ও বাণিজ্যিক ভবনে নেই ফায়ার সেফটি বা অগ্নিনির্বাপক যন্ত্র। এছাড়া ৯৫ ভাগ ভবন নির্মাণে মানা হয়নি বিল্ডিং কোড। তাই অগ্নিঝুঁকিসহ বড় দুর্ঘটনার সম্মুখীন হতে পারে উপজেলার ভবনগুলো।

ফায়ার সার্ভিস ও পৌর অফিসের তথ্যানুযায়ী, ১৯৯৪ সালে ১৬টি গ্রামকে ৯টি ওয়ার্ডে রুপান্তরিক করে প্রতিষ্ঠিত হয় রায়পুর পৌরসভা। পৌরসভাটি প্রথম শ্রেণির মর্যাদা লাভ করায় মানুষের বসবাস বাড়তে থাকে। এ লক্ষে যত্রতত্র গড়ে উঠে বহুতল আবাসিক ও বাণিজ্যিক ভবন। এসব ভবন নির্মাণে বিল্ডিং কোড মানা হয়নি। শতভাগ ভবনের মধ্যে পাঁচ শতাংশ ভবন বিল্ডিং কোড অনুযায়ী নির্মাণ করা হয়েছে।

এছাড়া অনেকে তিন থেকে পাঁচ তলার অনুমতি নিয়ে ১০ তলা ভবন নির্মাণ করেছেন। অনেকে ভবন নির্মাণের সময় বিকল্প সিঁড়ির ব্যবস্থা করেননি। তাছাড়া অগ্নি প্রতিরোধক ব্যবস্থাও নেই এসব ভবনে।

রায়পুর পৌরসভার প্রকৌশলী জুলফিকার আহম্মেদ বলেন, বেশির ভাগ ভবন নির্মাণের সময় ফায়ার সার্ভিসের সঙ্গে মালিকরা যোগাযোগ করেননি। এছাড়া স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় পৌরসভার মাস্টার প্লান তৈরিতে সহায়তা দেয়। সেই সহায়তাও নেননি তারা। তাই এসব ঝুঁকির বিষয়গুলো সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি। নির্দেশনা পেলে অপরিকল্পিত বহুতল ভবনের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। তবে আইনি ব্যবস্থার পাশাপাশি পৌরবাসীর সচেতনতাও প্রয়োজন।

রায়পুর ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম বলেন, দুর্ঘটনা ঘটলেই মানুষ ফায়ার সার্ভিসকে দোষারোপ করে। কিন্তু নিজেরাই নিজেদের বিপদ ডেকে আনেন, সে ব্যাপারে খেয়াল করেন না। ভবন মালিকদের বারবার সচেতন করে লাভ হচ্ছে না। ঝুঁকিপূর্ণ ভবন চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে। এছাড়া স্টেশনেও লোকবল সংকট রয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here