বান্দরবানে অবৈধভাবে পাহাড় কাটায় ১০ লাখ টাকা জরিমানা

66
মোঃ সাইফুল ইসলাম,বান্দরবান।
 বাংলাদেশ পরিবেশ সংরক্ষণ আইন ১৯৯৫ (সংশোধিত ২০১০) এবং বাংলাদেশ ভবন নির্মাণ আইন (১৯৫২) অনুযায়ী পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র ছাড়া কোন পাহাড় কাটা যাবেনা। কিন্তু কর্তৃপক্ষকে না জানিয়ে, “পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র ছাড়াই বান্দরবানে চলছে পাহাড় কাটা” বিভিন্ন গণমাধ্যমে এই সংক্রান্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করা হলে টনক নড়ে প্রশাসনের করা হয় জরিমানা।
গণমাধ্যমের খবরের সূত্র ধরে অভিযান পরিচালনা করে পরিবেশ অধিদপ্তর।সরেজমিনে বান্দরবান সদর উপজেলার সুয়ালক এলাকায় অবৈধভাবে পাহাড় কেটে বোতল ফ্যাক্টরি স্থাপনের অভিযোগের সত্যতা পাওয়া যাওয়ায় ফিল কোম্পানি লিমিটেডকে ১০ লাখ টাকা জরিমানা করেছে পরিবেশ অধিদফতর।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গত কিছুদিন ধরে জেলার সুয়ালক এলাকায় বড় বড় পাহাড় কেটে সমতল ভূমিতে পরিণত করা হয় বোতল ফ্যাক্টরি নির্মানের জন্য। প্রায় ৫ একরের বেশি জায়গার পাহাড় কেটে সমান করতে ব্যবহার করা হয় তিনটি এস্কেভেট। মাটি সরাতে ব্যবহার করা হয় বেশ কয়েকটি ডাম্পার ট্রাক, পাহাড় কাটার আগে নিধন করা হয় শতাধিক বৃক্ষ। চট্টগ্রামের সাবেক এক বিএনপি নেতার কোম্পানির পরিচালক মো. জসিম উদ্দিন এই পাহাড় কাটেন।

স্থানীয়রা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, প্রতিবছরই শুষ্ক মৌসুমে বিভিন্ন শ্রেণির মানুষ পাহাড় কাটে। এর ফলে প্রতি বর্ষায় পাহাড় ধসে প্রাণহানির ঘটনা ঘটে। তারপরও পাহাড় কাটা থামছে না। পাহাড় কাটা বন্ধে প্রশাসনের কঠোর নজরদারির দাবি জানান তারা।

পরিবেশ অধিদফতর চট্টগ্রাম অঞ্চল সূত্রে জানা গেছে, পরিবেশগত ছাড়পত্র বিহীনভাবে প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করে ক্ষতি সাধন করায় বাংলাদেশ পরিবেশ সংরক্ষণ আইন ১৯৯৫-এর ধারা ৭এর আলোকে ওই কোম্পানিকে এই জরিমানা করা হয়।

গত মঙ্গলবার পরিবেশ অধিদফতরের চট্টগ্রাম অঞ্চলের কার্যালয়ে তাদের তলব করে এই জরিমানা আদায় করা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here