হারিয়ে যাচ্ছে জাতীয় ফুল শাপলা

71

ফয়সাল আহমেদ: শাপলা ইংরেজিতে যাকে বলা হয় ডধঃবৎ ষরষু যার বৈজ্ঞানিক নাম ঘুসঢ়যবধ হড়ঁপযধষর । বাংলাদেশের জাতীয় ফুল শাপলা। অথচ অযত্ন আর অবহেলায় হারিয়ে যেতে বসেছে এ নয়নাভিরাম বিলে-ঝিলে ভাসা ফুল। শুধুমাত্র বাংলাদেশেই নয়, শ্রীলংকারও জাতীয় ফুল এ শাপলা। শ্রীলংকায় শাপলাকে বলা হয় নীল-মাহানেল। খাল-বিল ও আবদ্ধ জলাশয় ভরাটের কারণে শুধু রূপগঞ্জ নয় ঢাকার পূর্বাঞ্চলের বিভিন্ন এলাকা থেকে ক্রমান্বয়ে বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে জাতীয় ফুল শাপলা। সংরক্ষনের নেই কোনো উদ্যোগ।

উপজেলা কৃষি অফিসার তাজুল ইসলাম বলেন, জাতীয় ফুল শাপলা সাধারণত আবদ্ধ অগভীর জলাশয়, খাল-বিলে জন্মে থাকে। গ্রীক দার্শনিক প্লেটো ও এরিস্টটল এর এক শিষ্য থিউফ্রাস্টাস বলেছেন, শাপলা একটা জলজ উদ্ভিদ, যা প্রায় ৩’শ খ্রিস্টপূর্ব পুরনো। বাংলাদেশের আবহাওয়ায় সাধারণত পাঁচ প্রকার শাপলা ফুল দেখা যায়। সাদা, লাল, বেগুনি, হলুদ ও নীল রঙের।

এর মধ্যে সাদা শাপলা হলো বাংলাদেশের জাতীয় ফুল। গ্রামবাংলার আনাচে কানাচে হাওড় বিলে ঝিলে পুকুরে ডোবায় অহরহ দেখা যেত এ জলে ভাসা ফুল। তবে এখন অযত্ন অবহেলায় আর কৃষি জমিতে মাত্রাতিরিক্ত কীটনাশক ও রাসায়নিক সার ব্যবহারের কারণে জাতীয় ফুল শাপলা হারিয়ে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে। রূপগঞ্জে দু’ধরনের শাপলা দেখতে পাওয়া যেত। একটি সাদা আরেকটি লাল।

স্থানীয় ভাষায় সাদা শাপলাকে শাপলা আর লাল শাপলাকে রক্ত শাপলা বলা হয়ে থাকে। কৃষি জমি বালু দিয়ে ভরাট, প্রতি বছর ইরি জমি থেকে ইট ভাটার জন্যে মাটি কেটে নেয়া ইত্যাদি কারণে শাপলা আজ রূপগঞ্জের পুকুর, খাল-বিল থেকে হারিয়ে যেতে বসেছে। এ শাপলা ফুল যখন আবদ্ধ জলাশয়ে অনেক ফুটে থাকে তখন সেখানে এক অপরূপ সৌন্দর্যের সৃষ্টি হয়। আর ফুল থেকে যে অংশ ফলে রূপান্তরিত হয় তাকে স্থানীয় ভাষায় ড্যাব বলা হয়ে থাকে। এ ড্যাবের ভিতরে অনেক ছোট ছোট বীজ থাকে। এগুলো মানুষ উঠিয়ে নিয়ে ভেঙ্গে শুকিয়ে খই ভেজে খায়। এ খই খুবই সুস্বাদু।শাপলা বর্ষাকালে জন্মে ও ফুল ফোটে।

জাতীয় ফুল শাপলা ক্রমান্বয়ে হারিয়ে যাওয়ার বিষয়ে মুড়াপাড়া বিশ^বিদ্যালয় কলেজের শিক্ষক নুরুজ্জামান খাঁন জানান, শাপলা ফুল অগভীর আবদ্ধ জলাশয় আর খাল-বিলে জন্মে। বিশেষ করে বিলেই বেশি জন্মে। ডা: পিয়ারুল ইসলাম বলেন, আমার স্কুল পড়ুয়া মেয়ে জাতীয় ফুল শাপলা চিনেনা। তাকে ছবি দেখিয়ে শাপলা চেনাতে হয়। ব্রাইট শিশুকানন স্কুলের তৃতীয শ্রেনির শিক্ষার্থী মুনসিফ ইসলাম মাহির বলেন, শাপলা ফুল দেখিনি। চিনি না। শিক্ষকদের কাছে শুনেছি এবং বইয়ে পড়েছি শাপলা আমাদের জাতীয় ফুল।

ওই স্কুলের শিক্ষিকা ডলি আক্তার বলেন, ছেলেমেয়েরা এখন শাপলা ফুল দেখে না। তাই চেনে না। বইয়ের ছবি দেখে কিছুটা জানার চেষ্ঠা করে। খাল-বিল ও আবদ্ধ জলাশয়গুলো বালু দিয়ে ভরাটোর কারণে সেখানে আর শাপলা জন্মাতে পারে না। এ ছাড়া আবদ্ধ জলাশয়গুলোতে আধুনিক পদ্ধতিতে মাছ চাষ করার ফলে শাপলা জন্মানোর ক্ষেত্রগুলো নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।

নবীন-প্রবীনদের অনেকেই বলেন, জাতীয় ফুল শাপলা এক সময় হয়তো কাগজে-কলমে, পাঠ্য বইপত্রে লেখা থাকবে। দ্রুত বিলুপ্তির কারণে বাস্তবে আর হয়তো শাপলা খুঁজে পাওয়া যাবে না। উপজেলার খামারপাড়া এলাকার মনির উদ্দিন মনু মিয়া বলেন, এক সময় বিলে ঝিলে পুকুরে বর্ষা মৌসুমে নানা রঙের শাপলার বাহারী রূপে মানুষের নয়ন জুড়িয়ে যেত। শাপলা ছোটদের খুব প্রিয়। শাপলার ড্যাপ শিশুদের প্রিয় খাবার। গ্রামের মানুষের কাছে সবজি হিসেবেও খুব জনপ্রিয় ছিল এ শাপলা। অনেকে আবার বিল থেকে শাপলা তুলে বাজারে বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করতো।