ডিমসহ মা পাখিকে জবাই করে ফেসবুকে পোস্ট, ছাত্রদল নেতার বিরুদ্ধে মামলা

19

বরগুনা প্রতিনিধিঃ বরগুনার তালতলীতে একটি মাছরাঙ্গা পাখি জবাই করে ফেসবুকে পোস্ট দিয়েছেন কামরুজ্জামান ফারুক নামে একজন।তিনি উপজেলা সড়কের বাসিন্দা ও উপজেলা ছাত্রদলের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ও উপজেলা যুবদলের আহবায়ক কমিটির সদস্য এবং জেলা ছাত্রদলের সদস্য।

জানা গেছে, সোমবার বিকেল ২ টায় কামরুজ্জামান ফারুক তার নিজ ফেসবুক একাউন্টে পোস্ট করে।পাখিটাকে তিনি অনেকবার তারিয়ে ছিলো কিন্তু মা পাখি টার ৬ টা ডিম বাসায় তাই সে কিছুতেই যাচ্ছিলো না। তার পরে মাছরাঙা পাখিটার বাসা ঘেরাউ করে পাখিটাকে ধরে জবাই করে মাথা আর শরীর আলাদা করে ৬ টি ডিম এর পাশে রেখে ছবি তুলে ফেসবুকে আপলোড করতেই তা ভাইরাল হয়ে যায়।সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নিন্দার ঝড় ওঠে।

মঙ্গলবার রাতে সাগর কর্মকার বাদী হয়ে তালতলী থানায় এ মামলা দায়ের করেন। বিবেকের তাড়নায় আমি মামলা করেছি। আমাদের দেশ থেকে মাছরাঙা পাখি বিলুপ্তির পথে।প্রাকৃতিক ভারসাম্য রক্ষার স্বার্থে আমাদের পশুপাখিকে রক্ষা করতে হবে। যারা নির্বিচারে পাখি হত্যা করে তাদের বিচার হওয়া উচিত।

বরগুনার আইনজীবী সাইমুল রাব্বি বলেন, বন্য প্রাণী সংরক্ষণ আইন ২০১২ অনুযায়ী, প্রোটেকটেড বোর্ড বা সুরক্ষিত এ সব পাখি শিকার করা দ-নীয় অপরাধে এক বছর কারাদ- অথবা এক লাখটাকাপর্যন্ত অর্থদ- অথবা উভয় দের দ-ত হবেন।
একই অপরাধের পুনরাবৃত্তি ঘটলে সর্বোচ্চ দুই বছর পর্যন্ত কারাদ- অথবা সর্বোচ্চ দুই লাখ টাকা অর্থদ- বা উভয় দণ্ডিত হতে পারেন।

এ বিষয়ে কামরুজ্জামান ফারুক জানান, ওই পাখিটার দীর্ঘদিন ধরে তাদের পুকুরের মাছ খাচ্ছিল তাকে ধরার অনেক চেষ্টা করছিল অবশেষে তার ভাগ্নের সাহায্যে তাকে ধরে জবাই করে দু টুকরো করে তিনি আরো বলেন একটি ফানি পোস্ট হিসেবে ফেসবুকে পোস্ট করেছিলাম সবাই নেগেটিভ নিবে এটা আমি বুঝতে পারিনি।

তালতলী উপজেলা ছাত্রদল সভাপতি আতিকুর রহমান অসীম বলেন, একটা শিক্ষিত ছেলে বোকার মতো কাজ করেছে। জেলা ছাত্রদলের কাছে বহিস্কারের জন্য সুপারিশ করে পাঠিয়েছি তারা সিদ্ধান্ত নিবেন।

এ বিষয়ে তালতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি কামরুজ্জামান মিয়া জানান,বিরুদ্ধে পাখি শিকার করা দন্ডনীয় অপরাধে বন্যপ্রাণী সুরক্ষা ও বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ আইনে মামলা করা হয়েছে তাকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।