কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় ১৪দিনের মাথায় ফুলকপির ফুল ফুটায় চরম ক্ষতির মুখে চাষী

52

শোভন আহাম্মেদ :: কুষ্টিয়া ভেড়ামারার মোকারিমপুর ইউনিয়নের প্রায় ১০ একরের বেশী জমিতে ফুলকপি ১৪ দিনের মাথায় ফুল ফোটায় চরম ক্ষতির মুখে ফুলকপি চাষী। ফুলকপি চাষীগণ ভেড়ামারা পৌরসভার ভাই ভাই স্টোর, জ্যোতি বীজ ভান্ডার, আসলাম বীজ ভান্ডার থেকে ডন ফুলকপির বীজ (সিমেন্স কোম্পানীর) ক্রয় করে তারা জমিতে বীজ বপন করে। কিন্তু যেখানে ফুলকপির ফুল ফোটার সময় লাগে প্রায় ৪৫দিনে কিন্তু বিপরীত সেখানে ১৫দিনের মাথায় ফুলকপির ফুল ফোটায় চরম হতাশা ও ক্ষতির সম্মুখীন
ফুলকপি চাষী।

করোনা ভাইরাসের কারণে যখন কৃষকরা অনেকটাই কষ্টে দিন পার করছে ঠিক তখনই আবার এই ক্ষতির পরিমাণ বেশী হওয়া কৃষকের বুক মাটিতে ঠেকে গেছে। এ বিষয়ে ভেড়ামারা উপজেলার সুযোগ্য নির্বাহী কর্মকর্তা সোহেল মারুফ বরাবর ২০জন চাষী লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন, ডিলারের নিকট থেকে ক্ষতিপূরণের জন্য। ক্ষতিগ্রস্থ চাষী জসিম আলী দৈনিক কালজয়ী নিউজের কাছে বলেন, ১৪দিনের মাথায় ফুল কপির ফুল ফোটায় আমাদের প্রায় ৬ লক্ষ টাকার বেশী ক্ষতি হয়।আমরা ফুল কপি চাষী এই ক্ষতির জন্য অনেকটা নি:স্ব হয়ে গেলাম। এ বিষয়ে ভেড়ামারা ইউএনও মহোদয়ের সাথে কথা বললে তিনি জানান, ভেড়ামারা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা তদন্ত করে প্রতিবেদন দিলে সে মোতাবেক ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।