নাঙ্গলকোটে চাচার হাতে ভাতিজা খুন! লাশ সেফটি ট্যাঙ্কে

88

কালজয়ী ডেস্ক: কুমিল্লা জেলা নাঙ্গলকোটে উপজেলার আদ্রা উত্তর ইউনিয়ন দক্ষিণ শাকতলি গ্রামে তিনদিন নিখুঁজের পর চাচার সেফটি ট্যাঙ্কে থেকে রেজাউল হক (৩০) নামে ভাতিজার লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শনিবার  (৩০মে) রাত ৯ টার দিকে নাঙ্গলকোট উপজেলার আদ্রা উত্তর ইউনিয়ন দক্ষিণ শাকতলি এলাকা থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়। নিহত রেজাউল নাঙ্গলকোট উপজেলার উওর ইউনিয়নের আদ্রা দক্ষিণ শাকতলি হুমায়ুন কবিরের ছেলে। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, নিহত রেজাউল হক বিদেশ ফেরত প্রবাসী । রেজাউল হক সবসময় বাড়িতে  থাকতেন। তার স্ত্রী গর্ভবতী তাই বাবার বাড়িতে থাকেন। ঘটনার দিন সন্ধা  থেকে তার সন্ধান না মিললে সবাই মিলে তাকে খুজঁতে শুরু করেন। ঘটনার প্রেক্ষিতে থানায় জিডি করা হয়।

এক পর্যায়ে নিখোঁজ রেজাউলকে তিন দিন পর সন্ধ্যায় বাড়ির আপন চাচার সেফটি ট্যাঙ্ক থেকে ভাতিজার বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার করা হয়। তখন স্থানীয় প্রতিনিধি পুলিশকে বিষয়টি তাৎক্ষণিকভাবে জানান, পুলিশ এসে লাশটি উদ্ধার করে এবং এরমধ্যে বাহরাইন প্রবাস ফিরত চাচা কৌশলে পালিয়ে যায়। রেজাউল হকের চাচী মুরশিদা কে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করে পুলিশ। এঘটনায় একালায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। স্থানীয় ইব্রাহিম নামে এক ব্যাক্তি জানান, আমি ঘটনার তিনদিন আগে সর্বশেষ তাকে দেখেছি, আমাদের বাড়িতে ভাত খেয়ে রেজাউল চলে যায় নিজবাড়ী উদ্দেশ্যে।

আর আজ তিনদিন পর জানতে পারি তার লাশ চাচার সেফটি ট্যাঙ্কে পাওয়া গেছে। নিহত রেজাউল হকের স্ত্রী রামুনা বলেন, আমি অসুস্থ থাকায় আমি মায়ের কাছে থাকি। তবে প্রতিদিন কয়েকবার রেজাউল হক বাড়িতে আসে। ঘটনার দিন সন্ধ্যা থেকে আমার স্বামীকে কোথাও খুঁজে না পেয়ে আমার শশুড় স্থানীয়দের সহযোগিতায় রেজাউলকে খুজঁতে শুরু করে । খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে তিন দিন পর আজ নিজ চাচার সেফটি ট্যাঙ্ক থেকে বস্তাবন্দি আমার স্বামীর লাশ উদ্ধার করা হয়। আমার ধারণা চাচা-চাচী মিলে রেজাউলকে হত্যা করে লাশ সেফটি ট্যাঙ্কে ফেলে দেয়। আমি এ হত্যা কান্ডের বিচার চাই।

এবিষয়ে নাঙ্গলকোট থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, রেজাউল হক নামে এক ব্যক্তির লাশ সেফটি ট্যাঙ্ক থেকে উদ্ধার করি। রবিবার ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হবে। চাচীকে প্রাথমিকভাবে  জিজ্ঞাসা করলে হত্যার কথা স্বীকার করে। আর তদন্ত রিপোর্ট পেলে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।