সাতক্ষীরায় উপকূলে উত্তাল হয়ে উঠেছে নদ-নদী

42

আশিকুজ্জামান লিমন: সাতক্ষীরা জেলার শ্যামনগর উপকূলীয় অঞ্চলে ঘূর্ণিঝড় আম্পানের প্রভাবে উপকূলে উত্তাল হয়ে উঠেছে নদ-নদী। জোয়ারের পানিও বৃদ্ধি পেয়েছে। এর মধ্যে বৃষ্টির সাথে ঝোড়ো বাতাস শুরু হয়েছে। আম্পানের কবল থেকে রক্ষা পেতে মানুষ আশ্রয়কেন্দ্রের দিকে ছুটছে। মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে হঠাৎ করেই শুরু হয় ঝড়-বৃষ্টি। যদিও সকাল থেকে আকাশ মেঘাচ্ছন্ন ছিল ও গুমোট আবহাওয়া বিরাজ করছিল। এদিকে, ঘূর্ণিঝড় আম্পানের বিষয়ে সতর্ক করে উপকূলে স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে সর্বত্র মাইকিং করছে সিপিপি সদস্যরা। তোলা হয়েছে লাল পতাকা। শ্যামনগরের উপকূলীয় দ্বীপ ইউনিয়ন গাবুরা, পদ্মপুকুর, কৈখালী সহ অন্যান্য ইউনিয়নের সাধারণ মানুষকে আশ্রয়কেন্দ্রে আনার কাজ শুরু করেছে প্রশাসনের পাশাপাশি পুলিশ, বিজিবি, নৌবাহিনী, কোস্টগার্ড ও ফায়ার সার্ভিস। এদিকে, ঘূর্ণিঝড় আম্পানের সম্ভাব্য ক্ষয়ক্ষতি মোকাবিলায় শ্যামনগর উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। ইতিমধ্যে খুলে দেওয়া হয়েছে উপজেলার আশ্রয়কেন্দ্র গুলো। মানুষকে সতর্ক করে চলছে মাইকিং। এদিকে, ঝুঁকিপূর্ণ বেঁড়িবাধ নিয়ে আতঙ্কে আছে উপকূলের মানুষ। শ্যামনগর কয়েকটি পয়েন্টে বেঁড়িবাধ জীর্ণ শীর্ণ অবস্থায় রয়েছে। যা মেরামতে পানি উন্নয়ন বোর্ড বালুর বস্তা ডাম্পিং করার কাজ অব্যাহত রেখেছে। শ্যামনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আ ন ম আবুজর গিফারী জানান, উপকূলে ইতোমধ্যে ঝোড়ো বাতাস সহ বৃষ্টি শুরু হয়েছে। আমরা দ্বীপ ইউনিয়ন গাবুরা থেকে ১০ হাজার মানুষকে নিরাপদে আনার কাজ চলছে। এ জন্য ৫০টি বাস ও ১০০ ট্রলার রেডি করা হয়েছে। সকাল থেকে কাজও শুরু হয়েছিল। কিন্তু বৃষ্টি শুরু হয়ে যাওয়ায় কিছুটা বিঘিনত হচ্ছে।