জবি শিক্ষার্থীদের জরিপ, অনলাইন ক্লাসে অনীহা

50
ফয়সাল আরেফিন: করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে বন্ধ দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা অনুযায়ী আগামী সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বন্ধ থাকতে পারে দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।
এমন পরিস্থিতিতে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন (ইউজিসি) এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয় দেশের সকল সরকারি এবং বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়কে অনলাইনে ক্লাশ নেওয়ার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত জানিয়েছে। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো শুরু করেছে অনলাইন ক্লাসের প্রক্রিয়া। কথা উঠছে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে সেশনজট কমিয়ে আনতে অনলাইন ক্লাসের যৌক্তিকতা নিয়েও।
সবমিলিয়ে অনলাইনে ক্লাস করার ব্যাপারে কি ভাবছেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) শিক্ষার্থীরা তা জানতে অনলাইন জরিপের আয়োজন করে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় প্রেসক্লাব। জরিপের ফলাফল অনুযায়ী প্রায় ৯০ শতাংশ শিক্ষার্থী অনলাইনে ক্লাসে অনীহা প্রকাশ করেছেন।
রোববার (১৭ মে) রাত ৮.৩০ থেকে সোমবার (১৮মে) দুপুর ৩.৩০ পর্যন্ত জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় প্রেসল্লাবের অফিসিয়াল ফেসবুক গ্রুপ থেকে চালানো অনলাইন জরিপে অংশ নেন ১,২২৬ জন শিক্ষার্থী। এরমধ্যে অনলাইনে ক্লাস করাতে অনীহা প্রকাশ করেন ১,০৯৭জন শিক্ষার্থী। যা জরিপে অংশ নেওয়া শিক্ষার্থীদের ৮৯.৪৮ শতাংশ।
এছাড়াও অনলাইনে ক্লাসের পক্ষে মতামত দেন ১১৩ জন শিক্ষার্থী। যা জরিপে অংশ নেওয়া শিক্ষার্থীদের ৯.২২ শতাংশ। কোনো মতামত নেই এমন শিক্ষার্থীর সংখ্যা ১৬ জন। যা জরিপে অংশ নেওয়া শিক্ষার্থীদের ১.৩ শতাংশ।
শিক্ষার্থীরা বলছেন, অধিকাংশ শিক্ষার্থী এখন গ্রামে অবস্থান করছেন। গ্রামে পর্যাপ্ত ইন্টারবেট পরিসেবার যেমন অভাব তেমনি সব শিক্ষার্থীর অনলাইনে ক্লাশ করার জন্য ইন্টারনেটে পরিসেবা ক্রয়ের আর্থিক সামর্থ্যও নেই।
বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার প্রকৌশলী ওহিদুজ্জামান বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল শিক্ষার্থীর যদি অনলাইন সুবিধা না থাকে তাহলেতো ক্লাস নেওয়া সম্ভব না। যদি ধরে নিই, ৮০ শতাংশ শিক্ষার্থীর অনলাইনে ক্লাস করার সুযোগ আছে, তাহলে বাকি ২০ শতাংশ শিক্ষার্থী তো বাদ যাচ্ছেই।