চাল চোরদের জন্য উদাহরণ হয়ে থাকবে ভিক্ষুক নজিমুদ্দিন!

117
কালজয়ী ডেস্ক: ভিক্ষা করে সংসার চালানো ৮০ বছর বয়স্ক ভিক্ষুক মো: নজিমুদ্দিন করোনা তহবিলে দান করলেন ১০ হাজার টাকা।তার বাড়ি শেরপুরের ঝিনাইগাতী উপজেলার গান্ধীগাঁও গ্রামে। মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলার বাতিয়াগাঁও এলাকায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার রুবেল মাহমুদের হাতে এই টাকা তুলে দেন ভিক্ষুক নজিমুদ্দিন।স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ঘর মেরামত করার জন্য গত দুই বছর ধরে ভিক্ষা করে ১০ হাজার টাকা জমিয়েছিলেন মো. নজিমুদ্দিন। বর্তমান সময়ে করোনা পরিস্থিতির ভয়াবহতার কারণে ঘর মেরামত না করেই খাদ্যসহায়তার জন্য করোনা তহবিলে দান করলেন জমানো সব টাকা। গত রোববার ত্রাণ সহায়তা দেওয়ার জন্য স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবীরা গান্ধীগাঁও গ্রামে গিয়ে নজিমুদ্দিনের জাতীয় পরিচয়পত্র চাইলে তিনি ত্রাণ নেবেন না জানিয়ে, নিজেই উল্টো ত্রাণ তহবিলে ১০ হাজার টাকা সহায়তা করবেন বলে জানান।

এ কথা শুনার পর স্বেচ্ছাসেবীরা নজিমুদ্দিনকে স্থানীয় ইউএনও রুবেল মাহমুদের কাছে নিয়ে গেলে, তিনি ইউএনও‘র হাতে ১০ হাজার টাকা তুলে দেন।নজিমুদ্দিনের এ ঘটনার প্রেক্ষিতে ইউএনও রুবেল মাহমুদ বলেন, করোনায় অসহায় মানুষের প্রতি মহানুভবতার উজ্জল দৃষ্টান্তের সাক্ষী হলাম।ভিক্ষুক নজিমুদ্দিন সমাজের বিত্তশালীদের জন্য অনুসরণীয় হয়ে থাকবে। এ দানের পর নজিমুদ্দিন বলেন, অহন আর ঘর-দরজা ধরলাম না। আগে মানুষ খাইয়া বাচুক। ভাঙ্গা ঘর পরেও ধরন যাইব। তাই ইউএনও সাহেবের হাতে টাকা দিলাম।