এবার বাঁচলে মানুষ হবো, মানুষ হয়ে জন্ম নেবো, আকাশ সমান উদার হবো

583
কালজয়ী রিপোর্ট: ভুলে যেতে বসছি আজ কি বার কিংবা কত তারিখ কবে থেকে ঘরে বন্ধী। বড়ই বিরক্তিকর। কিচ্ছু ভাল্লাগছেনা। আর কত ঘরে বসে থাকা যায়। হাত পা গুলো যেন কেমন অসাড় হয়ে আসছে শরীরটাও ইদানিং খুব ভারী মনে হয়। টেলিভিশনেও এসেছে বিরক্তি। এবার বাঁচলে মানুষ হবো। মানুষ হ’য়ে জন্ম নেবো। আকাশ সমান উদার হবো। মৃত্যুদূত কন্ঠনালী চেপে ধরার আগে অপরাধ স্বীকার করুন এবং অনুশোচনায় অশ্রুসিক্ত হয়ে তওবা করুন! যাদের বয়স বেশি, তারা আক্রান্ত হলে মৃত্যুর আশঙ্কা বেশি– একথা সংশ্লিষ্টদের মুখে বিভিন্ন টিভি চ্যানেলে অনবরত শুনতে-শুনতে আজ অতিষ্ঠ হয়ে গেছি। আমাদের দেশের মৃত্যুর রেকর্ডও তা-ই বলছে, তার মধ্যে আবার পুরুষের সংখ্যা বেশী। আজ করোনায় মারা যাওয়া ১০ জনের মধ্যে ৭ জনই পুরুষ। চিন্তাতো থাকবেই। এরই মাঝে একজন ফোন করে বলল আমার চিন্তা কম কারন আমার নাকি বয়স পঞ্চাশের ঘরে উত্তরে আমি বললাম আপনার বয়সতো ষাটের উপরে এফিডেবিট করে বয়স কমিয়ে নিন তাহলেই তো হয়ে গেলো। তারপর উনি যা বলল “এ যাত্রায় বেঁচে গেলে, ভীষণ করে বাঁচবো, সবাইকে জড়িয়ে ধরে অনেক করে কাঁদবো। এ যাত্রায় রেহাই যদি পাই, অন্যের কথা ভাববো। যার যেখানে অংশ আছে হিসেব গুলো চুকিয়ে দেবো, একাকী নীড়ের ছানা দু মুঠো খেলো কিনা- খবর নেব, এ যাত্রায় বেচেঁ যদি যাই, অন্যদের আগে বাঁচতে দেব। ঘর থেকে বেড়িয়ে প্রথম নদীর কাছে ক্ষমা চাবো, বন পাহাড় আর সাগর দেশে বিনয় হেসে নত হবো, এ যাত্রায় বেঁচে গেলে আমি ঋণ না হয়ে পরিশোধ হবো। আর হবো না অহংকারী, আর হবো না রাশভারী, থামিয়ে দেব লোভ লালসার রাহাজানি, ধর্ম নিয়ে মহাজনী, পবিত্র প্রাণের ইবাদত হবো। এ যাত্রায় বেচেঁ বর্তে গেলে, মানুষের তরে মানুষ হব। এ যাত্রায় বেচেঁ যদি যাই, দূর্বলের কাছে আর যম হবো না, হরিণ ঘাতক তীর হবো না, অসৎ পথের ভিড় হবো না, সত্যি যদি রেহাই পাই, বেঁচে যদি যাই এ যাত্রায় একটি বার, যত অন্যায় পুষিয়ে দেব, যত হিংসা মিটিয়ে দেব, বাড়ি ফিরলে এবার, মায়ের শাড়ির আঁচল হবো, বউ এর চোখের কাজল হবো, ছেলের কাছে ঘোড়া হবো। আর যদি না বাঁচি, যদি হারিয়ে যাই ঐ একাকী অন্ধকারের দেশে, অন্তত দূর আকাশের চাঁদটি হবো, যতটুকু পারি আলো ছড়াবো”।