নতুন চারটি ও পৃথক কয়েকটি সমন্বিত প্রয়োগ নিয়ে কাজ চলছে-বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থ্যা

67

কালজয়ী ডেস্ক: করোনায় দিশেহারা পৃথিবী। প্রত্যেকদিন হাজার হাজার মানুষ মারা যাচ্ছে এই ভাইরাসে। আক্রান্ত হারও বাড়ছে লাফিয়ে লাফিয়ে। এরই মধ্যে একটি সু-সংবাদ দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থ্যা।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউওইচও) প্রধান তেদরোস আধানোম গেব্রোয়াসুস বলেছেন, নতুন করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সব মিলিয়ে ৪টি ওষুধ ও কয়েকটি ওষুধের সম্বন্বিত প্রয়োগ নিয়ে কাজ চলছে। গতকাল বুধবার জেনেভায় আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ তথ্য জানিয়েছেন। এ ক্ষেত্রে পরীক্ষা মূলক প্রয়োগের জন্য সব দেশকে এগিয়ে আশার আহ্বান জানিয়েছেন তেদরোস আধানোম গেব্রোয়াসুস।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান বলেছেন, অনেক দেশ এসব ওষুধের পরীক্ষামূলক প্রয়োগে এগিয়ে এসেছে। সব মিলিয়ে এখনও পর্যন্ত ৭৪টি দেশ এই কাজে অংশ নিয়েছে বা অংশ নেওয়ার প্রক্রিয়াতে আছে। বুধবার সকালের মধ্যে ২০০-এরও বেশি রোগীকে বিভিন্ন গবেষনা কার্যক্রমের সঙ্গে যুক্ত করা হয়েছে। কোভিড-১৯ প্রতিরোধে কোন ওষুধ কার্যকর হবে, সেটি জানতে প্রত্যেক রোগীই আমাদের সহায়তা করছেন। আমাদের একধাপ করে দিচ্ছেন।

সংবাদ সম্মেলনে হাত ধোয়া কর্মসূচী ও এর কার্যকারিতা নিয়েও কথা বলেছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান। তিনি বলেন, এ বিষয়ে ইউনিসেফ ও ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন অব রেড ক্রসের সঙ্গে যৌথভাবে একটি গাইডলাইন প্রকাশ করা হয়েছে। এই গাইড লাইন অনুযায়ী, সব দেশকে তাদের বিভিন্ন জনবহুল এলাকায় হাত ধোয়ার বিশেষায়িত স্থান স্থাপনের জন্য অনুরোধ করা হয়েছে। বিভিন্ন ভবন, অফিস, বাস স্টপ ও ট্রেন স্টেশনে হাত ধোয়ার জায়গা রাখতে হবে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান জানিয়েছেন, তিন মাস আগে নতুন করোনা ভাইরাস সর্ম্পকে তেমন কিছুই জানা ছিল না কারও। সমন্বিতভাবে কাজ করার কারণে এখন পর্যন্ত অনেক কিছুই জানা সম্ভব হয়েছে। প্রতি দিনই নতুন নতুন তথ্য জানা যাচ্ছে। সারা বিশ্ব থেকে জানা নানান তথ্য পর্যলোচনা করেই নতুন নতুন গাইডলাইন তৈরি হচ্ছে। তথ্যের ভিত্তিতে নেওয়া বিশেষজ্ঞ মতামত এ ক্ষেত্রে সর্বাধিক গুরুত্ব পাচ্ছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান বলেছেন, নতুন করোনা ভাইরাস এখনও বেশ নতুন। প্রতিনিয়তই নতুন নতুন তথ্য পাওয়া যাচ্ছে। ফলে যত সময় যাচ্ছে, তত মহামারি পরিস্থিতি বিবর্তিত হচ্ছে। ফলে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার দেওয়া পরামর্শেও পরিবর্তন আসছে।