করোনা রুখতে বৈশাখী উৎসব ভাতার সমস্ত অর্থ ব্যয় করলেন প্রকৌশলী এস এম মিজান

52

দৌলতপুর(কুষ্টিয়া) প্রতিনিধিঃ কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার ফিলিপনগর ইউনিয়নের সন্তান প্রকৌশলী এস এম মিজানুর রহমান জনি তাঁর বৈশাখী উৎসব ভাতার সম্পূর্ণ টাকা নিজ ইউনিয়নের করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধ মূলক কর্মসূচীতে ব্যয় করেছেন। করোনা প্রতিরোধে কাজ করছে একদল সেচ্ছাসেবী যুবক। গত কয়েকদিন ধরে তারা এ কার্যক্রম চালিযে যাচ্ছে । মঙ্গলবার বিকেল থেকে ফিলিপনগর ইউনিয়নের দারোগার মোড়, ইসলামপুর, চরসাদীপুর,মন্ডলপাড়া এলাকাতে এ কার্যক্রম পরিচালনা করছে ।হোসেনাবাদ আবেদেরঘাট সড়কের সকল যানবাহন গুলোতে ব্লিচিং ওয়াটার দিয়ে ইজি বাইক,পাখি ভ্যান, সি এন জি কে স্প্রে করে জীবানু মুক্ত করণ ও সচেনতা বাড়ানোর জন্য বিভিন্ন সচেতনতা মূলক লেখা সম্বলিত লিফলেট বিতরণ করা হয়েছে।

ফিলিপনগর ইউনিয়নের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান,মসজিদ, গণ-টিউবওয়েলে প্রায় ১৫০টি সাবান বেধে দেওয়া হয়েছে যাতে করে নিম্নবিত্ত পরিবারের সবাই ভাল করে সাবান পানি দিয়ে হাত পরিস্কার করতে পারে। এই জনসচেতনামূলক কাজ অব্যাহত থাকবে বলে সেচ্ছাসেবকরা জানিয়েছেন।

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধ কর্মসূচি বিষয়ে প্রকৌ. মিজান বলেন করোনা ভাইরাস ইতিমধ্যে মহামারী আকার ধারণ করেছে, সারা বিশ্ব এখন সংক্রামক করোনা ভাইরাস নিয়ে আতঙ্কিত। এখন পর্যন্ত প্রতিষেধক তৈরি না হওয়ায় একমাত্র প্রতিরোধের মাধ্যমেই করোনা ভাইরাসকে রোধ করা সম্ভব। সচেতনার মাধ্যমে আমরা ভাইরাসটির সংক্রমণ থেকে রক্ষা পেতে পারি। সচেতনতামূলক এই কাজের সাথে যুক্ত আছে একই ইউনিয়নের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীরা। এদের মধ্যে আলিফ, সবুজ , মিলন , রাব্বি , শুভ , বিপ্লব , আকাশ , কামরুজ্জামান , লাম , উজ্জল , রাজন , কনক, শামিম প্রমুখ ।