বাসচাপায় কুবি শিক্ষার্থী সুজন নিহত

70

কুবি প্রতিনিধি: বাসচাপায় প্রাণ হারালেন কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের (কু্বি) অ্যাকাউন্টিং অ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস (এআইএস) বিভাগের ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী মো. সুজন আহমেদ(২২)। নিহত সুজন কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার মোকাম ইউনিয়নের রুপদ্দি গ্রামের মৃত. রহমত আলীর ছেলে।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) দুপুর আড়াইটার দিকে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লা বুড়িচং উপজেলার কাবিলা বাংলা গার্টেন রেস্তোরার সামনে এনা পরিবহনের একটি বাসের সাথে অটোরিকশার সংঘর্ষে এ দুর্ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনায় কয়েকজন বাসযাত্রীসহ অটোরিকশায় থাকা চালক, নিহত সুজনের মা জাহেদা বেগম (৬৫), ভাবি রুবি আক্তার (৩৫) আহত হয়। স্থানীয় লোকজন আহতদের উদ্ধার করে স্থানীয় ইস্টার্ন মেডিকেল কলেজসহ বিভিন্ন হাসপাতালে পাঠায়।

জানা গেছে, দীর্ঘদিন অসুস্থ হয়ে ঢাকার একটি হাসপাতালে ভর্তি ছিল জাহেদা বেগম। শুক্রবার দুপুরে ঢাকা থেকে বাড়িতে আসছিলেন তিনি। অসুস্থ মাকে এগিয়ে নিতে ভাবি রুবি আক্তারের সঙ্গে অটোরিকশায় বাড়ির অদূরে মহাসড়কের পাশে আসে সুজন। অসুস্থ জাহেদা বেগমকে নিয়ে ওই অটোরিকশায় বাড়ির উদ্দেশে রওনা হন তারা। মহাসড়ক অতিক্রমের সময় ঢাকাগামী এনা পরিবহনের একটি বাস (ঢাকা মেট্টো-ব ১৪৯৩৬২) অটোরিকশাটিকে চাপা দেয়। নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সড়কের পাশে উল্টে যায় বাসটি। এ সময় দুর্ঘটনায় ঘটনাস্থলে নিহত হয় সুজন (২২)।

ময়নামতি ক্রসিং হাইওয়ে থানার ওসি আলমগীর হোসেন জানান, ‘দুপুরে দুর্ঘটনার খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে যাই। বাসটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশে চলে গিয়েছিলো। ঘটনায় আহতদের নিকটস্হ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নেওয়া হয়েছে। দুর্ঘটনাকবলিত বাসটিকে উদ্ধার করে থানায় আনা হয়েছে।’ কিন্তু এই ঘটনায় কেউ মারা গেছেন-এমন খবর তিনি পাননি বলে জানান।

তবে শিক্ষার্থী নিহতের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কুমিল্লার বুড়িচং থানার ওসি মোজাম্মেল হক। তিনি বলেন, দুর্ঘটনায় সুজন নামের একজন অটোরিক্সা যাত্রী (বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী) মারা যাওয়ার খবর শুনেছি। লাশ উদ্ধার করে বর্তমানে তার বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। আর নিহত শিক্ষার্থীর মা ও ভাবিকে প্রথমে ইস্টার্ন মেডিকেল কলেজ এবং পরে কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে। দুর্ঘটনায় কবলিত গাড়িগুলোকে হাইওয়ে পুলিশের হেফাজতে রাখা হয়েছে।’