একই সীটের দু’টিকেট,বিড়ম্বনার কবলে যাত্রীরা

121

খন্দকার দেলোয়ার হোসেন: দেশের অন্যতম সেরা গণপরিবহণ রেলওয়ে। সরকার নিরাপদে যাত্রীদের গন্তব্যে পৌঁছতে রেলওয়ে খাতে নানারকম সুযোগ সুবিধা সৃষ্টি করছেন। তবে নজরদারীর অভাবে কাঙ্খিত সেবা পাচ্ছেনা সাধারণ ভ্রমনকারীরা। আসন সংখ্যা সীমিত থাকলেও কিছু অসাদূ কর্মকর্তা-কর্মচারীর অবহেলায় প্রতিনিয়তই দুর্ভোগের শিকার হচ্ছে যাত্রীরা। এমনই একটি ঘটনা গতকাল সোমবার আন্তঃনগর মহানগর এক্সপ্রেসের । ‘ঢ’ বগি ও আসন একটা হলেও টিকেট বিক্রি হয়েছিল দু’টো করে। এনিয়ে যাত্রীদের তর্কবিতর্ক,হাতাহাতি। পরে অন্য একটি বগিতে সাময়িক বসার ব্যবস্থা করে ট্রেনের কর্তব্যরত এটেনডেন্ট।

প্রত্যক্ষদর্শী রেলওয়ের যাত্রী জাহাঙ্গীর জানান, দেশের প্রধান জাতীয় ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথ। এই পথে চলাচলকারী আন্তঃনগর মহানগর গোধূলী কুমিল্লার গুণবতী ষ্টেশনে নির্ধারিত যাত্রাবিরতি ছিল। গতকাল সোমবার প্রতিদিনের মতো বিকেল ৩টায় চট্টগ্রাম থেকে ঢাকা উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসে ট্রেনটি। বিকেল ৫ টায় পৌঁছে গুণবতী ষ্টেশনে। এখানে নির্ধারিত আসন সংখ্যা রয়েছে ২০টি। ট্রেনটি আসার পর যথারিতি যাত্রীরা উঠে আসনে বসার সময় বাধে ঝগড়া। এক পর্যায়ে হাতাহাতি। জানা যায়, ট্রেনের ‘ঢ’ বগির ২ ও ৩ নং আসনের একটি টিকেট ১১/০১/২০২০ এবং একই বগির একই নম্বরের সীটের টিকেট ১২/০১/২০২০ ইং তারিখে ইস্যূ করা হয়। ঘটনার এক পর্যায়ে ট্রেনে কর্তব্যরত এটেন্টডেন্ট এসে অনুরোধ করে একই টিকেটের অপর দু’যাত্রীকে পাশের একটি বগিতে সাময়িক বসার ব্যবস্থা করে দেয়। এতে পরিস্থিতির সাময়িক অবসান হলেও সংশ্লিস্টদের কর্তব্য নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। ট্রেনের অন্যন্য যাত্রীরা এসময় বলতে থাকেন এসব অনিয়মের সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে শাস্তিমুলক ব্যবস্থা না নিলে জনদুর্ভোগ কিছুতেই বন্ধ হবেনা।