1. bpdemon@gmail.com : Daily Kaljoyi : Daily Kaljoyi
  2. ratulmizan085@gmail.com : Daily Kaljoyi : Daily Kaljoyi
হত্যা মামলার রহস্য উন্মোচনে  সৈয়দপুর পুলিশের সাফল্য, গ্রেফতার ৩
বাংলাদেশ । রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪ ।। ৭ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি

হত্যা মামলার রহস্য উন্মোচনে  সৈয়দপুর পুলিশের সাফল্য, গ্রেফতার ৩

এসকেডি/দৈনিক কালজয়ী
  • প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ৭ নভেম্বর, ২০২৩
  • ৩৯৯ বার পড়েছে
নীলফামারীর সৈয়দপুরে যাত্রীবেশে উঠে চেতনানাশক ওষুধের মাধ্যমে ব্যাটারি চালিত অটোরিকশা চালক রমজান আলী (৪৬) হত্যায় ক্লুলেস মামলার রহস্য উদঘাটিত হয়েছে। আধুনিক তথ্য ও প্রযুক্তি ব্যবহারসহ নানা কৌশলের মাধ্যমে জড়িত তিন আসামিকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছে পুলিশ। রবিবার (৫ নভেম্বর) বিকেলে আসামীদের আদালতের মাধ্যমে নীলফামারী কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এর আগে গত ২৭ অক্টোবর ঢাকার উত্তরা এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক (এসআই) আহমদ উল্লাহ হক প্রধানের নেতৃত্বে সৈয়দপুর থানা পুলিশ সদস্যরা।
গ্রেফতারকৃতরা হলো কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলার হোকডাঙ্গা কুমারপাড়ার (জোবেরবাজার) মৃত. আজিজার রহমানের ছেলে নজরুল ইসলাম (৪৩), পার্বত্য জেলা খাগড়াছড়ির গুইমারা থানার হাফছাড় এলাকার বাদশা মিয়ার ছেলে মো. ফিরোজ (৩৬) ও গাজীপুরের কাপাসিয়া থানার পাবুর এলাকার মৃত. হাফিজের ছেলে মো. দুলাল (৪৫)। তবে জড়িত আরেক আসামীর পরিচয় এখনও নিশ্চিত হতে পারিনি পুলিশ। গ্রেফতারকৃতদের তিনদিনের রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। এতে আসামিদের কাছ থেকে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে মৃত. রমজান আলীর ছিনতাইকৃত অটোরিকশাটি গত ৩ নভেম্বর রংপুর মহানগরীর সাতমাথা এলাকার একটি অটোরিকশা গ্যারেজ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে।
মামলার বরাত দিয়ে পুলিশ জানিয়েছে সৈয়দপুর উপজেলার কামারপুকুর ইউনিয়নের আলাদিপাড়ার মৃত. হবিবর রহমানের ছেলে ব্যাটারি চালিত অটো রিকশা চালক রমজান আলী। তিনি ঘটনার দিন গত ৩১ আগষ্ট সকাল ৬ টায় প্রতিদিনের মতো অটো রিকশা চালানোর উদ্দেশ্যে কামারপুকুর ইউনিয়নের নতুন আবাসন প্রকল্প এলাকার বাড়ি থেকে বের হন। পরে কামারপুকুর বাজারের আবেদ আলীর (গুরু) রিকশা গ্যারেজ থেকে অটোরিকশা নিয়ে বের হন। পরবর্তীতে সকাল ১০টার দিকে অপরিচিত এক রিকশা চালক অটোরিকশা চালক রমজান আলীকে অচেতন অবস্থায় নিজ বাড়িতে পৌঁছে দেয়। এরপর পরিবারের লোকজন তাঁকে সৈয়দপুর ১০০ শয্যা হাসপাতালে নিয়ে যান। কিন্তু তাঁর অবস্থা আশঙ্কজনক হওয়ায় দ্রুত তাঁকে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় পরদিন ১ সেপ্টেম্বর ভোরে তিনি মারা যান।
এ ঘটনায় নিহতের স্ত্রী মোছা. শরিফা বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামীদের বিরুদ্ধে ওইদিনই (১ সেপ্টেম্বর) সৈয়দপুর থানায় একটি মামলা করেন। এ মামলাটি তদন্তের দায়িত্ব পান সৈয়দপুর থানার উপ-পরিদর্শক আহমদ উল্লাহ হক প্রধান। পরে তিনি ক্লুলেস হত্যা মামলাটির তদন্তে নামেন। প্রায় দুই মাস সৈয়দপুর শহর ছাড়াও পার্শ্ববতী রংপুরের বদরগঞ্জ উপজেলা শহরের বিভিন্ন স্থানের একাধিক প্রতিষ্ঠানের সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজ সংগ্রহ ও পর্যালোচনা করেন এবং আধুনিক তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় মোবাইল ট্র্যাকিংয়ের মাধ্যমে ঘটনায় জড়িতদের চিহ্নিত করতে সক্ষম হন।
এরপর তাদের গ্রেফতারে তৎপরতা শুরু করে সৈয়দপুর থানা পুলিশ। মোবাইল ট্র্যাকিংয়ের মাধ্যমে তাদের অবস্থান নিশ্চিত হয়ে গত ২৭ অক্টোবর তদন্তকারী কর্মকর্তা সৈয়দপুর থানার এস আই আহমদ উল্লাহ হক প্রধানের নেতৃত্বে এসআই আহসান হাবিব, এএসআই আবু তালেবকে নিয়ে ঢাকায় যান। ওইদিন রাতেই ঢাকার উত্তরা এলাকা থেকে তিন আসামীকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হন তারা।মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই আহমদ উল্লাহ হক প্রধান বলেন, এ মামলাটি তদন্ত করতে গিয়ে গ্রেফতার হওয়া আসামীরা সৈয়দপুর থেকে এর আগেও একাধিক অটোরিকশা ছিনতাইয়ের সঙ্গে জড়িত ছিল বলে প্রমাণ মিলেছে। পরে তাদেরকে ২৯ অক্টোবর নীলফামারী আদালতে পাঠানো হয়। গত ২ অক্টোবর আদালতে শুনানী শেষে তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। রিমান্ডে অনেক গুরুত্বপূর্ণ তথ্য মিলেছে বলে জানান তিনি। রিমান্ড শেষে তাদেরকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। সৈয়দপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. সাইফুল ইসলাম ক্লুলেস মামলার তিন আসামীকে গ্রেফতার ও ছিনতাইকৃত ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা উদ্ধারের বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, সব ধরনের কেস অত্যান্ত গুরুত্বের সাথে দেখা হয়। সেকারণেই ক্লুলেস এই হকত্যাকান্ডের রহস্য উন্মোচন সম্ভব হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন

Archive Calendar

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০৩১  
প্রকাশক কর্তৃক জেম প্রিন্টিং এন্ড পাবলিকেশন্স, ৩৭৪/৩ ঝাউতলা থেকে প্রকাশিত এবং মুদ্রিত।
প্রযুক্তি সহায়তায় Hi-Tech IT BD