1. bpdemon@gmail.com : Daily Kaljoyi : Daily Kaljoyi
  2. ratulmizan085@gmail.com : Daily Kaljoyi : Daily Kaljoyi
নীরব ভূমিকায় পানি উন্নয়ন বোর্ড ! নওগাঁয় তুলশীগঙ্গা নদীর বাঁধের মাটি কেটে পুকুর ভরাট - দৈনিক কালজয়ী
বাংলাদেশ । শুক্রবার, ৩০ জুলাই ২০২১ ।। ২০শে জিলহজ, ১৪৪২ হিজরি

নীরব ভূমিকায় পানি উন্নয়ন বোর্ড ! নওগাঁয় তুলশীগঙ্গা নদীর বাঁধের মাটি কেটে পুকুর ভরাট

রুহুল আমিন:
  • প্রকাশিত: বুধবার, ১৪ জুলাই, ২০২১
  • ৬২ বার পড়েছে

নওগাঁ সদরে তুলশীগঙ্গা নদীর বাঁধের মাটি কেটে ব্যক্তিগত পুকুর ভরাটের কাজ করা হচ্ছে। এতে বাঁধের পাড় নিচু হয়ে গেছে। বর্ষা মৌসুমে নদীতে পানি বেশি হলে ‘ওভার ফ্লু’ হয়ে এলাকা প্লাবিত হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে। এতে বড় ধরনের ক্ষতির আশঙ্কা করছেন এলাকাবাসী। মাটি ব্যবসায়ীর মাধ্যমে সদর উপজেলার চন্ডিপুর ইউনিয়নের ইলশাবাড়ি চকপাড়া গ্রামের স্থানীয় এক প্রভাবশালীর বিরুদ্ধে নদীর বাঁধের মাটি কেটে পুকুর ভরাট করার অভিযোগ উঠেছে। এভাবে প্রকাশ্যে নিয়মবহির্ভূতভাবে নদীর বাঁধের মাটি কেটে নিয়ে গেলেও নীরব ভূমিকায় রয়েছে পানি উন্নয়ন বোর্ড।

জানা গেছে, নওগাঁ সদর উপজেলার খিদিরপুর, পিরোজপুর ও সুলতানপুর গ্রামের মাঝ দিয়ে তুলশীগঙ্গা নদী বয়ে গেছে। পানি উন্নয়ন বোর্ড থেকে ২০১৮-১৯ অর্থবছরে সদর উপজেলার ত্রিমোহনীহাট রেগুলেটর থেকে তুলশীগঙ্গা ব্রিজ পর্যন্ত প্রায় ১০ কিলোমিটার নদী কিছুদিন আগে খনন কাজ শেষ হয়। নদী খননের সময় মাটি নদীর দুই পাড়ে রাখা হয়েছিল। পানি উন্নয়ন বোর্ডের নজরদারীর অভাবে যে যার মতো করে মাটিগুলো কেটে সরিয়ে নিচ্ছে। অনেক মাটি ব্যবসায়ী রাতের আধারে মাটি ইটভাটায় দেওয়ার মতো ঘটনা ঘটেছে। এ নিয়ে চলতি বছরের ১৩ ফেব্রুয়ারী খিদিরপুর মুন্সিপাড়া গ্রামবাসীর সঙ্গে মাটি ব্যবসায়ীদের সংঘর্ষের ঘটনাও ঘটেছে। গত কয়েকদিন থেকে দুইটি স্ক্যাবিটর (ভেকু) ও ১০-১২টি ট্রাক্টর দিয়ে তুলশীগঙ্গা নদীর চন্ডিপুর বোর্ড ব্রিজের পাশ থেকে নদীর পাড়ের মাটি কেটে পুকুর ভরাট করছেন স্থানীয় প্রভাবশালী আব্দুল মতিন নামে এক ব্যক্তি।

স্থানীয় ইলশাবাড়ি গ্রামের সাজেদুর রহমান, সাজ্জাদ ও বয়জৈষ্ঠ্য রাজ্জাক বলেন, নদীর পাড়ের মাটি কেটে নিয়ে এসে পুকুর ভরাট করা হচ্ছে। যাদের কাজ তারা যদি না দেখে আমরা কি করবো। নদীর পাড়ের মাটি যে যার মতো কেটে নিয়ে যাচ্ছে। আগামীতে আমাদের জন্য অসুবিধার সম্মুখীন হতে পারে। রাস্তার তুলনায় নদীর বাঁধ নিচু হয়ে গেছে। নদীতে পানি আসলে ওভার ফ্লু হয়ে এলাকা প্লাবিত হওয়ার সম্ভবনা আছে।

পুকুর মালিক আব্দুল মতিন বলেন, তিনি রানীনগর উপজেলায় প্রশাসনিক কর্মকর্তা পদে চাকরি করেন। নদী খননের সময় আমাদের জায়গার ওপর নদীর মাটি রাখা হয়েছিল। এতে করে আমাদের সব সম্পত্তি নষ্ট করেছে পানি উন্নয়ন বোর্ড। আমরা আবাদ করতে পারছিনা। গত ৩-৪ দিন থেকে নদীর পাড়ের মাটি সরানোর কাজ করছি। পানি উন্নয়ন বোর্ড বলেছে যে যার মতো মাটি সরিয়ে নিতে। নদীর পাড়ের মাটিগুলো দিয়ে পাশেই নিজেদের পুকুর ভরাটের কাজ করছি। মাটি ব্যবসায়ী লিটন বলেন, যারা পুকুর ভরাট করছেন তারা আমার বন্ধু হয়। মাটি কাটা ও পরিবহনের জন্য গাড়িগুলো ঠিক করে দিয়েছি। এতে আমার কোন ধরনের লাভ নাই।

নওগাঁ পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মো. মাছুদ রানা বলেন, কর্তৃপক্ষের লিখিত অনুমতি সাপেক্ষে নিচু জায়গা, মসজিদ, মন্দির ও সেবামুলক কাজে ভরাট করা যাবে। তবে ব্যক্তিগত কোন জায়গায় এভাবে কেউ ভরাট করতে পারবেন না। সংবাদ পেয়ে মঙ্গলবার (১৩ জুলাই) ঘটনাস্থলে অফিসের লোক পাঠিয়েছিলাম। সেখানে কাউকে পাওয়া যায়নি। বুধবার ঘটনাস্থলে আবারও লোক পাঠানো হবে।

নওগাঁ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মির্জা ইমাম উদ্দিন বলেন, জনকল্যাণমুলক এবং ক্ষতিগ্রস্থ কৃষক হলে মাটি সরিয়ে নিতে পারবেন। তবে ব্যক্তিগত কাজে নদীর পাড়ের মাটি কেটে ব্যবহার করা যাবে না। বিষয়টি খোঁজ নিয়ে দেখবো।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন

Archive Calendar

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  
প্রকাশক কর্তৃক জেম প্রিন্টিং এন্ড পাবলিকেশন্স, ৩৭৪/৩ ঝাউতলা থেকে প্রকাশিত এবং মুদ্রিত।
প্রযুক্তি সহায়তায় Hi-Tech IT BD