1. bpdemon@gmail.com : Daily Kaljoyi : Daily Kaljoyi
  2. ratulmizan085@gmail.com : Daily Kaljoyi : Daily Kaljoyi
গাইবান্ধার ফুলছড়িতে ব্রহ্মপুত্রের ভাঙনে গৃহহীন ২হাজার পরিবার
বাংলাদেশ । বুধবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১ ।। ১৩ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি
ব্রেকিং নিউজ
কুমিল্লার মুরাদনগরে জমি বিরোধে চাচীকে পিটিয়ে জখম,বিএনপি নেতা আটক মৌলভীবাজারে ডিবির জালে ইয়াবাসহ যুবক আটক কু‌মিল্লার ৩ উপজেলায় র‌্যা‌বের পৃথক অভিযানে মাদকদ্রব্যসহ আটক-৫ ১৫দফা আদায়ে যশোরের বেনাপোলে কর্মবিরতী,বন্ধ রয়েছে পণ্য পরিবহন কুমিল্লার বুড়িচংয়ে আগুনে পুড়ে মরলো শেকলবন্দী কলেজছাত্র মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগরে চিকিৎসা নিতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার নারী,ভন্ড কবিরাজ আটক কক্সবাজারের পেকুয়ায় গৃহবধূ ও স্বজনদের পিটিয়ে জখম মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায় অল্প মুল্য ইট বিক্রির নামে ৮কোটি টাকা আত্মসাৎ বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের হল খোলা ২৪সেপ্টেম্বর,পরীক্ষা শুরু ২৭সেপ্টেম্বর কুমিল্লার বুড়িচংয়ে পুলিশের পৃথক অভিযানে গাঁজাসহ ৮মাদক কারবারি আটক

গাইবান্ধার ফুলছড়িতে ব্রহ্মপুত্রের ভাঙনে গৃহহীন ২হাজার পরিবার

আবু কায়সার শিপলু :
  • প্রকাশিত: সোমবার, ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ৫২ বার পড়েছে
গাইবান্ধার ফুলছড়িতে ব্রহ্মপুত্রের ভাঙনে গৃহহীন ২হাজার পরিবার
গাইবান্ধার ফুলছড়িতে ব্রহ্মপুত্রের ভাঙনে গৃহহীন ২হাজার পরিবার

গাইবান্ধার ফুলছড়ি উপজেলায় ব্রহ্মপুত্র নদের অব্যাহত ভাঙনে গৃহহীন হয়ে পড়েছে প্রায় দুই হাজার পরিবার।আবাদী জমি ও বসতভিটা হারিয়ে পরিবারগুলো চরম দুর্দশার মধ্যে পড়েছেন।ভাঙন অব্যাহত থাকায় হুমকির মুখে রয়েছে লোকজন।জানা গেছে,এ বছর সরকারি হিসেবে বন্যায় ফুলছড়ি উপজেলার ২ হাজার ৩৯টি পরিবার ব্রহ্মপুত্র নদের ভাঙনের শিকার হয়ে তাদের বসতভিটা হারিয়েছেন।আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ৭ হাজার ৫১৩টি পরিবার।

নদী ভাঙনে ক্ষতবিক্ষত এসব পরিবার জায়গা জমি না থাকায় আশ্রয় নিয়েছেন আত্মীয়-স্বজন,প্রতিবেশি ও জেগে উঠা চরসহ বিভিন্ন এলাকায়।সবচেয়ে বেশি ভাঙন কবলিত এলাকাগুলো হচ্ছে উড়িয়া ইউনিয়নের ভুষিরভিটা,মধ্য উড়িয়া,গজারিয়া ইউনিয়নের গলনা,ঝানঝাইর,ভাজনডাঙা,ফুলছড়ি ইউনিয়নের পিপুলিয়া,পূর্ব গাবগাছি,টেংরাকান্দি,বাজে ফুলছড়ি,বাগবাড়ি, ফজলুপুর ইউনিয়নের খাটিয়ামারী,কুচখালী,এরেন্ডাবাড়ী ইউনিয়নের ডাকাতিয়ার চর ও জিগাবাড়ী গ্রাম।

ব্রহ্মপুত্র নদের বুকে এসব এলাকার অবস্থান হওয়ায় তীব্র স্রোতে চোখের নিমিষেই বিলীন হচ্ছে আবাদী জমি ও বসতভিটা।গজারিয়া ইউনিয়নের গলনা গ্রামের ছাত্তার মিয়া জানান,বন্যার পানি নেমে গেলেও মানুষজনের মধ্যে বড় আতংক হয়ে দাঁড়িয়েছে নদী ভাঙন।প্রায় ৪০ বছর আগে নদী ভাঙনে বসতভিটা হারিয়ে গলনা গ্রামে আশ্রয় নিয়েছিলেন।চরের মধ্যে যেটুকু জমি ছিল তা দিয়ে ভালই সংসার চলতো।তিনি আরও বলেন,ঘরের সব জিনিস নিতে পারিনি।হাতের কাছে যা পেয়েছি তাই নৌকায় তুলে নিয়েছি।

গজারিয়া ইউনিয়নের সাবেক ইউপি সদস্য হাসান আলী বলেন,গলনা গ্রামে প্রায় ৫শত পরিবার বসবাস করে আসছে।নদীতে পানি কমে গিয়ে তীব্র স্রোতে ভাঙনের তীব্রতা বেড়ে গেছে।এরই মধ্যে একটি গুচ্ছগ্রাম সহ ২শত পরিবার ভাঙনের শিকার হয়েছে।লোকজন তাদের বাড়িঘর সরানোয় সময় পাচ্ছেন না।এব্যাপারে ফুলছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আবু রায়হান দোলন বলেন,বন্যা ও নদী ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ২৫ মে. টন জিআর চাল,নগদ ৫০ হাজার টাকা ও ৪শত প্যাকেট শুকনা খাবার বিতরণ করা হয়েছে।নদী ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা করে উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন

Archive Calendar

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০  
প্রকাশক কর্তৃক জেম প্রিন্টিং এন্ড পাবলিকেশন্স, ৩৭৪/৩ ঝাউতলা থেকে প্রকাশিত এবং মুদ্রিত।
প্রযুক্তি সহায়তায় Hi-Tech IT BD